ট্রেনের বগিতে ইঞ্জিনের ধাক্কা নিহত ১

আহত ৪০

প্রকাশ: ০৪ অক্টোবর ২০১৯

রংপুর অফিস ও লালমনিরহাট প্রতিনিধি

ট্রেনের বগিতে ইঞ্জিনের ধাক্কা নিহত ১

রংপুরের কাউনিয়ায় ইঞ্জিনের ধাক্কায় ক্ষতিগ্রস্ত ট্রেনের বগি সমকাল

রংপুরের কাউনিয়ায় রেলওয়ে জংশনে ট্রেনের ইঞ্জিন পরিবর্তনের সময় বগিতে গিয়ে সজোরে ধাক্কা লাগে। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন বগিতে থাকা যুবক আপেল মাহমুদ। আহত হন অন্তত ৪০ জন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সান্তাহার থেকে ছেড়ে আসা পঞ্চগড়গামী উত্তরবঙ্গ মেইল ট্রেনে মর্মান্তিক এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আপেল মাহমুদ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রুহিয়া গ্রামের আমিনুল ইসলামের ছেলে। এদিকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে দুর্ঘটনাকবলিত ট্রেনের চালক মো. শামসুজ্জামান ও তার সহকারী শাহীনুরকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিস, রেলওয়ে ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সান্তাহার থেকে পঞ্চগড়গামী উত্তরবঙ্গ মেইল ট্রেনের ইঞ্জিন ঘোরানোর সময় সেটি বগিকে সজোরে ধাক্কা দেয়। এতে কয়েকটি বগি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। বগি ও ইঞ্জিন দুটিই ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় প্রচণ্ড ধাক্কায় বগির ভেতরে থাকা যুবক আপেল মাহমুদ ঘটনাস্থলেই নিহত হন। আহত হন অন্তত ৪০ জন। পরে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিট ও রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ দ্রুত আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠায়। তারা কাউনিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তাদের মধ্যে সাতজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতদের মধ্যে রয়েছেন- জোলেখা (৫০), আসিয়া (৫৫), রফিকুল (৪৮), মানিক (৪০), মিজান (৪২), রাহেনা বেগম (৩২), ভবেশ (৪০), রশিদ (৫২), ঊষা (৪০), আনসার আলী (৬০), আপন (২০), আবিয়া (৪০), সানিয়া (১১) ও মোনালিসা (৪৩)।

রংপুর ফায়ার সার্ভিসের জ্যেষ্ঠ স্টেশন কর্মকর্তা খুরশীদ আলম বলেন, ইঞ্জিন ঘোরানোর সময় সেটি দিয়ে বগিতে ধাক্কা লাগলে সেখানে থাকা যুবক আপেল নিহত হন। আমরা আহতদের উদ্ধার করে আ্যাম্বুলেন্সে হাসপাতালে পাঠাই।

ঘটনা তদন্তে লালমনিরহাট রেলওয়ে কার্যালয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেনকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের এবং রাজশাহী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের চিফ কমার্শিয়াল ম্যানেজার শাহনেওয়াজকে প্রধান করে চার সদস্যের দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। লালমনিরহাট বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক শফিকুর রহমান বলেন, ইঞ্জিন কোচকে আঘাত করার কারণে কোচ ও ইঞ্জিন দুটিই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ইঞ্জিনটি ফায়ারম্যান নাকি লোকোমাস্টার চালাচ্ছিলেন, তাও তদন্ত করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে লালমনিরহাট বিভাগীয় রেলওয়ের চিফ ট্রেন কন্ট্রোলার (ভারপ্রাপ্ত) ফারুখুল ইসলাম মানিক জানান, ট্রেনের ইঞ্জিনে ত্রুটি, না-কি অন্য কোনো কারণে এ দুর্ঘটনা তা তদন্তের মাধ্যমে জানা যাবে। এ রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে বলেও জানান তিনি।

কাউনিয়া থানার ওসি আজিজুল ইসলাম বলেন, তারা ঘটনাস্থল থেকে একজনের লাশ উদ্ধার করেছেন। আহত ১৩ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তিনি আরও জানান, দুর্ঘটনায় ট্রেন চলাচলে কোনো বিঘ্ন ঘটেনি। লাইনচ্যুত বগি দুটি লাইনে ওঠানোর কাজ চলছে।