মহম্মদপুরে হামলায় সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত

বাড়িঘর ভাঙচুর অগ্নিসংযোগ

প্রকাশ: ১৫ জানুয়ারি ২০২০      

মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি

মহম্মদপুরে হামলায় সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা নিহত

মাগুরার মহম্মদপুরে সোমবার প্রতিপক্ষের হামলায় পুলিশের অবসরপ্রাপ্ত এসআই নিহত হওয়ার পর রাতে বিক্ষুব্ধ লোকজন অভিযুক্ত নওশের শিকদারের বসতঘরে আগুন ধরিয়ে দেয় - সমকাল

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলায় প্রতিপক্ষের সশস্ত্র হামলায় আবু সাঈদ মোল্লা (৬০) নামের এক অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন চারজন। সোমবার রাতে উপজেলার বালিদিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আবু সাঈদ মোল্লা ওই গ্রামের নুরুল ইসলাম মোল্লার ছেলে। এর জেরে তার পক্ষের লোকজন প্রতিপক্ষের শতাধিক বসতঘরে ভাঙচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করেছে বলে জানা গেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, বালিদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মফিজুর রহমান মিনা এবং আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুচ শিকদারের মধ্যে এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। সোমবার রাত ৯টার দিকে ইউনুচ শিকদারের সমর্থক পুলিশের সাবেক এসআই আবু সাঈদ মোল্লা পাশের বড়রিয়া গ্রামে ঘোড়দৌড়ের মেলা দেখে কয়েকজনকে নিয়ে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে বালিদিয়া চৌরাস্তার মোড়ে এলে মফিজুর রহমান মিনার সমর্থকরা রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে তাদের গতিরোধ করে। এ সময় তাদের দেশি অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে। তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। আবু সাঈদ মোল্লাসহ অন্য চারজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সেখান থেকে আবু সাঈদ মোল্লাকে মাগুরা সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন তার সঙ্গী ওহিদ, রিপন, তারিকুল ও মফিদুল।

স্থানীয়রা আরও জানান, আবু সাঈদ মোল্লার মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গভীর রাতে ইউনুচ শিকদারের লোকজন প্রতিপক্ষের শতাধিক বসতঘর ভাঙচুর, লুটপাট ও পাটকাঠির গাদায় অগ্নিসংযোগ করে। এ সময় তারা বালিদিয়া বাজারের কয়েকটি দোকানপাটেও ভাঙচুর চালায়। মহম্মদপুর ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট আগুন নেভায়।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরার পুলিশ সুপার খান রেজওয়ান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম, সহকারী পুলিশ সুপার (শালিখা সার্কেল) আবীর সিদ্দিকি শুভ্র, মহম্মদপুর থানার ওসি তারক বিশ্বাস, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান শতাধিক ফোর্স নিয়ে ইউনুচ শিকদারের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে দুটি সড়কিসহ তিনটি মোটরসাইকেল জব্দ করে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে পুলিশের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইকিং করা হয়েছে। এ ছাড়া শিকদারের মোড় থেকে বালিদিয়া বাজার পর্যন্ত শতাধিক র‌্যাব-পুলিশ দিচ্ছে।

মহম্মদপুর থানার ওসি তারক বিশ্বাস বলেন, এলাকার পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা সামাল দিতে পুলিশ প্রস্তুত রয়েছে। তিনি আরও জানান, বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে ছয়জনকে আটক করা হয়েছে। আর নিহত সাঈদ মোল্লার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মাগুরা সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।