প্রকৌশলে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা

কমিটির চেয়ারম্যান ও কেন্দ্র নিয়ে মতভেদ

প্রকাশ: ২১ জানুয়ারি ২০২১

সমকাল প্রতিবেদক

দেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষা গুচ্ছ পদ্ধতিতে নেওয়ার ব্যাপারে দফায় দফায় নানা জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। নানা বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যরা পরস্পর মতভেদে জড়িয়ে পড়েছেন। সর্বশেষ গোল বেধেছে পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান ও পরীক্ষার কেন্দ্র নির্ধারণ নিয়ে।

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষার জন্য দেশের প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ইংরেজি বানানের আদ্যক্ষর দিয়ে পর্যায়ক্রমে কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান এবং ভর্তি পরীক্ষা চার বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হওয়ার বিষয়ে একমত হয়েছেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ছাড়া বাকি অন্য তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা। এ দুটি বিষয়ে বুয়েট আগামী সপ্তাহে জরুরি একাডেমিক কাউন্সিলের সভা আহ্বান করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবে।

গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে বুয়েটের একাডেমিক কাউন্সিলের দেওয়া সিদ্ধান্তের ওপর রুয়েট, চুয়েট ও কুয়েটের একাডেমিক কাউন্সিলের দেওয়া সিদ্ধান্ত নিয়ে গতকাল বুধবার ইউজিসির সঙ্গে উপাচার্যদের এক ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। বুয়েটের প্রস্তাবনা অনুসারে, প্রতি বছর কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান বুয়েট থেকে এবং পরীক্ষার কেন্দ্র শুধু বুয়েটেই হবে। তবে, কমিটিতে অন্য প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অংশীদারিত্ব থাকবে। প্রশ্নপত্র কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির প্রণয়ন করবে।

ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. রফিকুল ইসলাম শেখ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কাজী সাজ্জাদ এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপউপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল জব্বার খান যুক্ত ছিলেন।

এছাড়া, সভায় ইউজিসির জনসংযোগ ও তথ্য অধিকার বিভাগের পরিচালক ড. শামসুল আরেফিন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ম্যানেজমেন্ট বিভাগের পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) মোহাম্মদ জামিনুর রহমান এবং বুয়েটের তিনজন অধ্যাপক অংশ নেন।

সভায় বুয়েটের উপউপাচার্য অধ্যাপক জব্বার খান বলেন, ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘবে তারা এই পদ্ধতিতে যাচ্ছেন। বুয়েটের চলমান ভর্তি পরীক্ষা পদ্ধতি নিয়ে কোনো ধরনের প্রশ্ন নেই। গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষায় কোনো ধরনের বিপর্যয় যাতে না ঘটে, সেদিকে আমরা সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

সভায় ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক আলমগীর বলেন, শিগগিরই এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হবে। ভর্তি পরীক্ষার পদ্ধতি নিয়ে শিক্ষার্থীরা উদ্বিগ্ন। এ বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ সবার জন্য মঙ্গলজনক। গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় সকল বিশ্ববিদ্যালয়কে তিনি উদারভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, এর আগে ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত এক সভায় দেশের চারটি প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও তাদের মনোনীত প্রতিনিধিরা জানান, গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নিতে সবাই নীতিগতভাবে সম্মত আছেন।