চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার খাগরিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ বেলাল উদ্দীনকে (৪৮) কুপিয়ে ও পিটিয়ে খুন করা হয়েছে। গত বুধবার রাত ১০টায় তৈয়ারপাড়া বটতল এলাকায় তাকে মারাত্মকভাবে আহত করা হয়। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত বেলাল এলাকার মৃত আবদুল কবিরের ছেলে। এ ঘটনায় পুলিশ রাতেই জাহেদুল ইসলাম (২৫) নামে একজনকে এলজিসহ গ্রেপ্তার করেছে। তিনি স্থানীয় ইউপি মেম্বার লিয়াকতের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। ঘটনার জের ধরে বুধবার রাতেই নিহত বেলালের অনুসারীরা তৈয়ারপাড়া এলাকার ১০টি বসতঘর ভাঙচুর করে।

এ প্রসঙ্গে সাতকানিয়া থানার ওসি আনোয়ার হোসেন সমকালকে জানান, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্তুতি চলছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চমেক মর্গে রাখা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, নিহত বেলাল উদ্দীনের সঙ্গে স্থানীয় ইউপি সদস্য লিয়াকত আলী, দেলোয়ার হোসেন, মো. সাদেকসহ বেশ কয়েকজনের দীর্ঘদিনের বিরোধ ছিল। ঘটনার দিন গত বুধবার রাতে বেলাল তৈয়ারপাড়ায় তার শ্বশুরবাড়িতে যাচ্ছিলেন। তাকে একা পেয়ে প্রতিপক্ষের লোকজন হামলা চালিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে দোহাজারী হাসপাতালে নেয়। সেখান থেকে তাকে চমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়। জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত বেলাল উদ্দীনের ছেলে চট্টগ্রাম নগরের এমইএস বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র মেহেদী হাসান হিরু জানান, লিয়াকত আলীর সঙ্গে তার বাবার বিরোধ চলছিল। এই বিরোধ মীমাংসার জন্য বুধবার রাতে প্রতিপক্ষ তার বাবাকে ডেকে নেয়। তারপর সুযোগ বুঝে তারা তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে খুন করে।

তবে অভিযুক্ত লিয়াকত আলী এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের জানান, বেলালের সঙ্গে তৈয়ারপাড়ার পাশের গ্রামের এক নারীর অবৈধ সম্পর্ক ছিল। বুধবার রাতে তার বাড়িতে যাওয়ার পথে এলাকার লোকজন বিষয়টি টের পেয়ে বেলালকে ধরে ফেলে এবং মারধর করে। এতে তার মৃত্যু হয়।

খাগরিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাশেদ আজগর চৌধুরী সুজা জানান, রাজনৈতিক মতবিরোধ, সামাজিক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দ্বন্দ্বে প্রতিপক্ষের লোকজনের হামলায় বেলাল মারা গেছেন। তিনি জানান, এর আগেও বেলালের ওপর হামলা হয়েছে।




মন্তব্য করুন