শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম বিতর্ক প্রতিযোগিতা। বিতর্কের মাধ্যমে একদিকে শিক্ষার্থীদের যেমন মেধার বিকাশ ঘটে, অন্যদিকে সভা-সেমিনারে বক্তব্য দেওয়ার অভিজ্ঞতাও বাড়ে। পাশাপাশি ভাষা শিক্ষা, শব্দ চয়নের গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম বিতর্ক প্রতিযোগিতা। তাই শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার পাশাপাশি এ বিষয়ে আরও মনোযোগ দেওয়া জরুরি। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা পর্যায়ে বিএফএফ-সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসবের অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন।

'বিতর্ক মানেই যুক্তি বিজ্ঞানে মুক্তি' স্লোগানে ১৮ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়েছে 'বিএফএফ-সমকাল জাতীয় বিজ্ঞান বিতর্ক উৎসব ২০২১'। গতকাল পিরোজপুর, বরগুনা, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, ফেনী, বাগেরহাট ও জয়পুরহাটে অনুষ্ঠিত বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় স্কুল শিক্ষার্থীরা। খুদে বিতার্কিকদের যুক্তি-পাল্টাযুক্তি খণ্ডনের মধ্য দিয়ে প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে বিতর্ক উৎসব।

সমকাল সুহৃদ সমাবেশের আয়োজনে এবং বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের (বিএফএফ) সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে এ বিতর্ক উৎসব। স্কুল বিজ্ঞান বিতর্কের সবচেয়ে বড় এ আসরে এবার অংশ নিচ্ছে ৬৪ জেলার ৫২০ স্কুল। এবারের আয়োজনে বিশেষ সহযোগী হিসেবে রয়েছে প্রফেসর'স কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স। করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবারের উৎসব। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে বিস্তারিত :

বরগুনা :সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বরগুনা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে উৎসবমুখর পরিবেশে বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় জেলার চারটি স্কুলের শিক্ষার্থীরা। চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বরগুনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং রানার্সআপ বরগুনা জিলা স্কুল। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছে চ্যাম্পিয়ন দলের নেতা মুমতাহিনা করিম ইকরা।

বিচারকের দায়িত্বে ছিলেন বরগুনা সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস, বরগুনা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি চিত্তরঞ্জন শীল, বরগুনা মডেল আলিয়া মাদ্রাসার রসায়ন বিভাগের প্রভাষক মাহবুবুর রহমান। মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন সমকাল সুহৃদ সমাবেশের বরগুনা জেলা সভাপতি তারিক-বিন আনসারী সুমন । সার্বিক দায়িত্ব পালন করেন সুহৃদ সমাবেশের জেলা শাখার সদস্য আবু জাফর, রাসেল মাহমুদ, নুরে জান্নাত ইপ্তি, আফিয়া হোসেন রিফা, সুরাইয়া আক্তার।

প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন অধ্যক্ষ প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস। অতিথি ছিলেন বরগুনা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সোহেল হাফিজ, জেলা পাবলিক পলিসি ফোরামের সভাপতি হাসানুর রহমান ঝন্টু, প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক স্বপন দাস। স্বাগত বক্তব্য দেন সমকালের বরগুনা প্রতিনিধি আবু জাফর সালেহ্‌।

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বরগুনা সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুমা আক্তার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বরগুনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি জহিরুল হাসান বাদশা, সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ '৭১ বরগুনা জেলা সভাপতি আনোয়ার হোসেন মনোয়ার, জেলা নাগরিক অধিকার সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন কামাল।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক স্বপন দাস, জাহাঙ্গীর কবির মৃধা, জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন মিলন, এসএ টিভির বরগুনা প্রতিনিধি নুরুজ্জামান ফারুক, নিউজ টোয়েন্টিফোরের প্রতিনিধি সুমন সিকদার, চ্যানেল নাইনের প্রতিনিধি ফকরুল ইসলাম রনি, ডিবিসি টেলিভিশনের প্রতিনিধি মালেক মিঠু প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে ইউএনও বলেন, বিতর্কের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের যেমন মেধার বিকাশ ঘটে, তেমনি অভিজ্ঞতা বৃদ্ধি পায় বিভিন্ন সভা-সেমিনারে বক্তব্য রাখার। ছাত্রজীবনের এ অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সফলতা লাভ করা যায় চাকরি অথবা অন্য যে কোনো পেশায়। এ ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন করায় সমকাল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

বাগেরহাট :বাগেরহাট শেখ হেলাল উদ্দিন স্টেডিয়াম মিলনায়তনে আয়োজিত প্রতিযোগিতায় জেলার মাধ্যমিক পর্যায়ের আটটি বিদ্যালয় অংশ নেয়। বিতার্কিকরা অত্যন্ত সাবলীল ও সুন্দরভাবে পক্ষে-বিপক্ষে তাদের যুক্তি তুলে ধরে। অতিথি ও দর্শকরা মনোযোগ সহকারে বিতর্ক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। চ্যাম্পিয়ন হয় বাগেরহাট সরকারি বালিকা বিদ্যালয় এবং রানার্সআপ বাগেরহাট বহুমুখী কলেজিয়েট স্কুল। সেরা বক্তা নির্বাচিত হয় চ্যাম্পিয়ন দলের ছাত্রী তাসমিয়া তাহমিদ আপন।

বিচারক ছিলেন অধ্যাপক চৌধরী আব্দুর রব, অধ্যাপক বুলবুল তালুকদার ও বাগেরহাট সুহৃদ সমাবেশের শহিদুল হক। মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন রক্তদানকারী প্রতিষ্ঠন 'আলোর পথে'র সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক।

সুহৃদ সমাবেশের বাগেরহাট জেলা সভাপতি সাকির হোসেনের সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অধ্যাপক মোজাফফর হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ক্রীড়া সংগঠক সরদার ওমর ফারুক, বাংলাদেশ স্কাউটস খুলনা অঞ্চলের সহসভাপতি ও সুহৃদ সমাবেশ বাগেরহাট জেলার উপদেষ্টা শেখ হায়দার আলী বাবু, ন্যাশনাল ডিবেট ফেডারেশন বাংলাদেশ খুলনা অঞ্চলের উপপরিচালক ও বাগেরহাট জেলা সমন্বয়কারী শিক্ষক আবেদা সুলতানা, জেলা সুহৃদ সমাবেশের প্রধান উপদেষ্টা ও সমকাল বাগেরহাটের স্টাফ রিপোর্টার দেলোয়ার হোসেন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাহী সদস্য শেখ ইসতিয়াক আহমেদ, সাংবাদিক শওকত আলী বাবু ও কবি তৈফুন্নাহার।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাগেরহাট সুহৃদ সমাবেশের সহসভাপতি কল্লোল সরকার, সাধারণ সম্পাদক হেনা চৌধরী, সাংবাদিক আল আমিন খান সুমন, শেখ সোহান, আব্দুল্লাহ আল ইমরান ও তানজিম হোসাইন। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন সুহৃদ সমাবেশের ফয়সাল হাওলাদার ও আরিয়ান হিরক।

পটুয়াখালী :সকালে পটুয়াখালী সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের ওআরসি ভবনে বিতর্ক অনুষ্ঠানে আটটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিতার্কিক দল অংশ নেয়। চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শেরেবাংলা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং রানার্সআপ পবিপ্রবির সৃজনী বিদ্যানিকেতন। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছে চ্যাম্পিয়ন দলের চাঁদনী দেবী।

উৎসবের উদ্বোধন করেন পটুয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সোহানা হোসেন মিকি। জেলা সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সমকালের জেলা প্রতিনিধি মুফতী সালাহউদ্দিন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক পবিত্র চন্দ্র হাওলাদার, সুহৃদ সমাবেশের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কবি ও সাহিত্যিক গাজী হানিফ, প্রাক্তন সুহৃদ উম্মে নাহিদা অশ্রু, জেলা সুহৃদ সমাবেশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহবুবা হক মেবিন, পবিপ্রবির সভাপতি রেজওয়ানা হিমেল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ভাষা আন্দোলনে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়।

দুপুরে সমাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলের বিতার্কিকদের হাতে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট ও টি-শার্ট তুলে দেন পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র মহিউদ্দিন আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. গোলাম সরোয়ার।

প্রতিযোগিতায় মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন জেলা সুহৃদ সমাবেশের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য বাবুল চন্দ্র হাওলাদার ও সরকারি কলেজ শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক ফাতেমা-তুজ জোহরা শর্মী। সময় নিয়ন্ত্রক ছিলেন জেলা সুহৃদ সমাবেশের নারীবিষয়ক সম্পাদক হাওয়া ইসলাম বৃষ্টি ও কাজী রফিকুল ইসলাম রাহাত।

সুহৃদদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কবি সৈয়দ আবদুল ওয়াদুদ, দিপা দত্ত, জেলা সুহৃদ সমাবেশের সহসভাপতি রাহেলা শরীফ ফারহানা, মাহমুদুল হাসান রায়হান, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসলাম উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান রাব্বি, দুমকী উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক তাহেরা আলী রুমা, সরকারি কলেজ শাখার আহ্বায়ক আরিফ হোসাইন দিদার, যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ বিন মইন ও সদস্য সচিব মাকসুদুর রহমান মাসুম, পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক আসমা আক্তার, কার্যনির্বাহী সদস্য আমেনা বেগম, সুহৃদ সাইয়ারা আফিয়া ঝুমুর ও নাইম হোসেন প্রমুখ।

পিরোজপুর :পিরোজপুর সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় মঠবাড়িয়ার কে এম লতিফ ইনস্টিটিউশন চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। রানার্সআপ হয়েছে পিরোজপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছে রানার্সআপ দলের ডি কে দিব্যামনি।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজের অধ্যক্ষ সৈয়দ আলী আজম, পিরোজপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি মুনিরুজ্জামান নাসিম আলী, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সম্পাদক জিয়াউল আহসান গাজী।

সুহৃদ সমাবেশ পিরোজপুর জেলা শাখার সহসভাপতি দ্বীপশিখা দাসের সভাপতিত্বে সকাল ১০টায় উদ্বোধন অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সুহৃদ সমাবেশ পিরোজপুর জেলা শাখার সম্পাদক দিপঙ্কর মাতা মিন্টু। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সমকাল জেলা প্রতিনিধি ফসিউল ইসলাম বাচ্চু।

মডারেটর ও বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন সোহরাওয়ার্দী কলেজের ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ শাহীন রেজা, রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. জাহিদুল ইসলাম, প্রভাষক উজ্জ্বল কুমার হালদার, প্রভাষক মো. হাবিবুল্লাহ হাওলাদার, প্রভাষক মো. মহসীন উদ্দীন এবং প্রভাষক মো. সালাওয়াতউল্লাহ।

জয়পুরহাট :জয়পুরহাট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রতিযোগিতায় জেলার আটটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ২৪ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। চ্যাম্পিয়ন হয় জয়পুরহাট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় দল এবং রানার্সআপ কালাই এম.ইউ. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় দল। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় চ্যাম্পিয়ন দলের মারিয়া সরকার।

সকাল ৯টায় উৎসবের উদ্বোধন করেন ইশরাত ফারজানা। মডারেটর ছিলেন পাঁচবিবি উপজেলার বড় মানিক উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক আব্দুল হাই এবং জয়পুরহাট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক তায়জুল ইসলাম। বিচারক ছিলেন পাঁচবিবি এলবিপি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক কাজী আব্দুল হাকিম, পাঁচবিবি এনএম সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আব্দুল মোত্তালেব, যমুনা টিভির স্টাফ রিপোর্টার আব্দুল আলিম, হাতিয়র বহুমুখী সিনিয়র কামিল মাদ্রাসার প্রভাষক শামীম রেজা এবং কালাই এম.ইউ. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক সুজাউল ইসলাম।

উৎসবে সার্বিক সহযোগিতা করেন সমকালের ক্ষেতলাল উপজেলা প্রতিনিধি নজরুল ইসলাম, আক্কেলপুর উপজেলা সংবাদদাতা নিওয়াজ মোর্শেদসহ সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম, হারুনুর রশিদ, আলমগীর চৌধুরী, রবিউল ইসলাম রুবেল ও সমকালের হিলি সংবাদদাতা জাহিদ হোসেন।

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জয়পুরহাট সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন। উপস্থিত ছিলেন কালাই উপজেলা চেয়ারম্যান মিনফুজুর রহমান মিলন, জয়পুরহাট প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক খ.ম. আব্দুর রহমান রনি। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সমকালের জয়পুরহাট প্রতিনিধি শাহারুল আলম।

ঝালকাঠি :সকাল ৯টায় সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আরিফুল ইসলাম। বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন রাজাপুর সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক ড. কামরুন্নেছা আজাদ ও হিমানন্দকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রতুল কুমার রায়।

চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ঝালকাঠি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়। রানার্সআপ হরচন্দ্র সরকারি বালিকা বিদ্যালয়। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয়েছে তাসমিয়া জাহান সাওদা। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে ক্রেস্ট, টি-শার্ট ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

সঞ্চালনা করেন সাংবাদিক শফিউল ইসলাম সৈকত। ঝালকাঠির মোট আটটি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এতে অংশ নেয়।

ফেনী :ফেনীতে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয় ফেনী সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এবং রানার্সআপ ফেনী সেন্ট্রাল হাই স্কুল। শ্রেষ্ঠ বক্তা নির্বাচিত হয় চ্যাম্পিয়ন দলের জিদান উদ্দিন চৌধুরী। ফেনী জেলা সুহৃদ সমাবেশের সভাপতি কবি সাম্য লিনার সভাপতিত্বে প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন অ্যাডভোকেট সাইফউদ্দিন মজুমদার শাহীন, ফয়েজুর রহমান ও অ্যাডভোকেট মাহফুজুল হক।

সার্বিক দায়িত্ব পালন করেন সমকালের নিজস্ব প্রতিবেদক শাহজালাল রতন। মডারেটরের দায়িত্ব পালন করেন দাগনভূঞা প্রতিনিধি ইমাম হোসেন কচি।





মন্তব্য করুন