ঋণ কেলেঙ্কারির মামলায় বেসিক ব্যাংকের শান্তিনগর শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক মুহাম্মদ আলীকে এক মামলায় জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট। এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল মঙ্গলবার এ আদেশ দেন।

জামিন শুনানির সময় প্রশ্ন তুলে হাইকোর্ট বলেন, বেসিক ব্যাংকের মামলার তদন্ত কি অনন্তকাল চলবে? বাস্তবতা হচ্ছে পাঁচ বছরেও চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দিতে পারেনি দুদক। সেইসঙ্গে বেসিক ব্যাংকের মামলায় 'ফলো দ্য মানি' খোঁজার বিষয়টি বাস্তবতা বিবর্জিত বলেও মন্তব্য করেন হাইকোর্ট।

আদালতে দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার গোলাম সারোয়ার। আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

খুরশীদ আলম খান সাংবাদিকদের জানান, শান্তিনগর শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক মুহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে করা ১৩টি মামলার একটিতে জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। দুদকের করা ১৫টি মামলার সাতটিতে এফআইআরভুক্ত আসামি তিনি।

দুদকের এই আইনজীবী আরও বলেন, বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির ঘটনায় ৫৬টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ব্যাংকের চার হাজার ৫০০ কোটি টাকার মধ্যে তিন হাজার ১০০ কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়েছে বলেও হাইকোর্টকে জানানো হয়েছে।

২০১৩ সালে বেসিক ব্যাংকের তিনটি শাখার অনিয়ম নিয়ে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়।

মন্তব্য করুন