বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, হেফাজতে ইসলামের কর্মসূচির সঙ্গে বিএনপির কোনো সংশ্নিষ্টতা ছিল না। কিন্তু সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে সরকার বিএনপি এবং অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মামলায় জড়িয়ে গ্রেপ্তার ও হয়রানি করছে।

গতকাল সোমবার এক বিবৃতিতে তিনি এ অভিযোগ করেন। খুলনায় পুলিশের হামলায় আহত বিএনপি নেতা মোহাম্মদ বাবুল কাজীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ এবং ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, নওগাঁ, চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া, পটিয়াসহ দেশব্যাপী পুলিশের গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধ, গ্রেপ্তার নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে এ বিবৃতি দেওয়া হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ভয়াবহ করোনার মধ্যেও পুলিশ বিএনপির নিরীহ নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করতে তাদের বাড়ি বা পাড়া-মহল্লায় অভিযান চালিয়ে হয়রানি করছে। পুলিশের অপকীর্তি ও হামলায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। রাজনৈতিকভাবে বিএনপিকে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়ে সরকার প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের দমন করতে চাচ্ছে। এটা সরকারের ভ্রষ্টাচার নীতি ছাড়া আর কিছুই নয়।

তিনি বলেন, স্বাধীনতা দিবসে নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করে মানুষ হত্যার প্রতিবাদে বিএনপি ২৯ মার্চ দেশব্যাপী মহানগর ও ৩০ মার্চ জেলা সদরে প্রতিবাদ বিক্ষোভের ডাক দেয়। দলের এসব কর্মসূচিতে স্থানীয় পুলিশ ব্যাপক হামলা, গুলিবর্ষণ ও  লাঠিচার্জ করে। খুলনার কর্মসূচিতে পুলিশের বেপরোয়া লাঠিচার্জে বিএনপি নেতা বাবুল কাজীসহ ৩০ জন আহত হন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাবুল কাজী রোববার রাতে মার যান। বিবৃতিতে সারাদেশে দমন-পীড়ন, হয়রানি ও নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের উদ্দেশ্যে চালানো পুলিশি অভিযান বন্ধের দাবি জানান মির্জা ফখরুল।

মন্তব্য করুন