সাময়িক হিসাবে চলতি অর্থবছরে (২০২০-২১) মাথাপিছু আয় গত অর্থবছরের চেয়ে ১৬৩ ডলার (১৩ হাজার ৮২৪ টাকা) বেড়েছে। এ বছর মাথাপিছু আয় হয়েছে ২ হাজার ২২৭ ডলার, যা গত অর্থবছরে (২০১৯-২০) ছিল ২ হাজার ৬৪ ডলার।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ তথ্য তুলে ধরেন। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বৈঠকে পরিকল্পনামন্ত্রী জানিয়েছেন, মাথাপিছু আয় এক বছরে ৯ শতাংশ বেড়েছে। গত অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) ছিল ২৭ লাখ ৯৬ হাজার ৩৭৮ কোটি। এই অর্থবছরে বেড়ে হয়েছে ৩০ লাখ ৮৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। তবে এ পরিসংখ্যান এখনও চূড়ান্ত হয়নি। এক বছরের

মাথাপিছু আয় ২ হাজার ২২৭ ডলারকে টাকায় রূপান্তর করলে হয় এক লাখ ৮৮ হাজার ৮৭৩ টাকা (প্রতি ডলার ৮৪ দশমিক ৮১ টাকা)।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ১৭ মে প্রধানমন্ত্রীর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ৪০ বছর পূর্ণ হলো। সে জন্য মন্ত্রিপরিষদ থেকে তাকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর এই স্মরণীয় দিনে মাথাপিছু আয় বাড়ার তথ্যটিকে চমৎকার বলে উল্লেখ করেছেন সবাই।

অর্থবছর শেষ হওয়ার আগে পরিসংখ্যান ব্যুরো জিডিপি এবং মোট জাতীয় আয়ের (জিএনআই) সাময়িক হিসাব করে। অর্থবছর শেষ হওয়ার কয়েক মাস পর তা চূড়ান্ত করে। কোনো অর্থবছরে দেশে পণ্য ও সেবার মোট উৎপাদনের মূল্য সেই অর্থবছরের জিডিপি। অন্যদিকে জিএনআই হলো প্রবাসীদের পাঠানো অর্থসহ দেশের সব লোকের মোট আয়। মোট জাতীয় আয়কে জনসংখ্যা দিয়ে ভাগ করে মাথাপিছু আয় নিরূপণ করা হয়। এ বছর রেমিট্যান্স ব্যাপকভাবে বেড়েছে, যা মাথাপিছু আয় বৃদ্ধিতে বিশেষ অবদান রেখেছে।


মন্তব্য করুন