গাইবান্ধায় ব্যবসায়ী হাসান আলীর হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও বিচারসহ চার দফা দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত অর্ধদিবস হরতাল পালিত হয়েছে। হরতাল চলাকালে জেলা শহরের ডিবি রোডসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ এবং পিকেটিং করেছে হরতাল সমর্থকরা।

'হাসান হত্যার প্রতিবাদ মঞ্চ' শহরের ১ নম্বর রেলগেট এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। হরতাল চলাকালে শহরের কিছু দোকানপাট বন্ধ ছিল। তবে ব্যাংক-বীমা, অফিস-আদালত খোলা ছিল। এ ছাড়া রিকশা, অটোবাইক, সিএনজিচালিত অটোরিকশার চলাচল ছিল স্বাভাবিক।

পরে ডিবি রোডে আসুজ্জামান মার্কেটের সামনে সমাবেশে বক্তব্য দেন মঞ্চের সমন্বয়ক আমিনুল ইসলাম গোলাপ, জেলা বার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু, কমিউনিস্ট পার্টির জেলা সভাপতি মিহির ঘোষ, বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক ওয়াজিউর রহমান রাফেল, জাসদ নেতা গোলাম মারুফ মোনা এবং জাহাঙ্গীর কবির তনু, নূর মোহাম্মদ বাবু, নিলুফার ইয়াসমিন শিল্পী প্রমুখ।

এদিকে, হরতালের প্রতিবাদে আওয়ামী মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ গাইবান্ধা জেলা শাখার উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। এতে নেতৃত্ব দেন সাধারণ সম্পাদক আশিফউজ্জামান শশী। বিক্ষোভ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিল শেষে জেলা শহরের ১ নম্বর ট্রাফিক মোড় এলাকায় প্রতিবাদ সমাবেশ করা হয়। পরে তারা গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবে ব্রিফিং করেন।

ব্যবসায়ী হাসান আলী হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে তারা বলেন, একটি কুচক্রী মহল হাসান হত্যার ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে নানা অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

জেলা কমিটির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আমিন পাপুলের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কুটির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান বাবু, কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আহসান হাবিব নাহিদ, জেলা কমিটির সহসভাপতি আল ইমরান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামছুল হক সজীব প্রমুখ।

গাইবান্ধা জেলা শহরের নারায়ণপুর এলাকার বাসিন্দা জেলা আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক দাদন ব্যবসায়ী মাসুদ রানার বাড়ি থেকে গত ১০ এপ্রিল পাদুকা ব্যবসায়ী হাসান আলীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হাসান আলী শহরের থানাপাড়া এলাকার বাসিন্দা।





মন্তব্য করুন