মুন্সীগঞ্জের মাওয়ার কাছে পদ্মা সেতুর খুঁটির সঙ্গে ধাক্কা লেগে একটি রো রো ফেরির সামনের অংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে বহু যাত্রী আহত হয়েছেন। জখম হয়েছেন অন্তত ২০ যাত্রী। ধাক্কায় খুঁটির বড় ধরনের ক্ষতি না হলেও ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সেতু কর্তৃপক্ষ জরুরি পদক্ষেপ নিতে বলেছে।

গতকাল শুক্রবার সকালের ওই ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার জন্য ফেরিটির ইনচার্জ ইনল্যান্ড মাস্টার অফিসার আব্দুর রহমানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে বিআইডব্লিউটিসি। পাশাপাশি ঘটনা তদন্তে এদিনই চার সদস্যের কমিটি গঠন করেছে সংস্থাটি।

বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ ও যাত্রীরা জানান, সকাল ৯টার দিকে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে আসার পথে রো রো ফেরি শাহজালাল পদ্মা সেতুর ১৭ নম্বর খুঁটির সঙ্গে প্রচণ্ড ধাক্কা লেগে ফেরির সামনের অংশে বড় ধরনের ছিদ্র হয়েছে। এতে ফেরিতে থাকা ৩৩টি যানবাহন একটি আরেকটির সঙ্গে ধাক্কা লাগে। ফেরির প্রায় দুই হাজার যাত্রীর অনেকেই ফেরিতে পড়ে যান। ধাক্কায় তছনছ হয়ে গেছে ফেরির ভেতরের ক্যান্টিন।

জানা গেছে, ফেরিটি মূল পদ্মায় প্রবেশ করার পরপরই প্রচণ্ড ঝোড়ো হাওয়ায় সৃষ্ট প্রবল ঢেউ এবং তীব্র স্রোতের কবলে পড়ে। এ সময় আকস্মিক ফেরির ইলেকট্রনিক সিস্টেমে ত্রুটি দেখা দেওয়ায় ইঞ্জিন অচল হয়ে পড়ে এবং ফেরির মাস্টার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। এ অবস্থায় প্রচণ্ড গতিতে ফেরিটি নৌরুটের সীমানা ছাড়িয়ে পদ্মা সেতুর খুঁটিকে সজোরে ধাক্কা দেয়।

মাস্টার আব্দুর রহমান জানান, আঘাতটি পানির লেভেলের নিচে হলে ফেরিটি ডুবে যেতে পারত। পরে দ্রুত আবার ফেরিটি চ্যানেলে এনে গন্তব্যে রওনা হয় এবং ১০টার কিছু আগে শিমুলিয়া ৩ নম্বর ফেরিঘাটে পৌঁছায়। আহত যাত্রীদের হাসপাতালে নেওয়া হয়।

চলতি মাসে এই নিয়ে তিনটি ফেরি সেতুর খুঁটিতে আঘাত করেছে বলে জানান সেতুটির নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল কাদের। তিনি জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পে কর্মরত প্রকৌশলীদের একটি টিম সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ১০০ টন ওজনের ফেরিটি ধাক্কা দিলেও খুঁটির কোনো ক্ষতি হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, খুঁটির চারদিকে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থাকায় সেখানে সামান্য ঘষা লেগেছে। খুঁটির সঙ্গে ফেরির সংঘর্ষের ঘটনায় সেতুর কোনো ক্ষতি হয়নি। যেটুকু আঘাত লেগেছে, তা নিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ সংশ্নিষ্টরা চিন্তিত নয় বলে জানিয়েছেন পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, 'পদ্মা সেতুর কাঠামো এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে, যা পাঁচ হাজার টন পর্যন্ত আঘাত সহনীয়। তাই যেটুকু আঘাত লেগেছে, এটা নিয়ে আমরা চিন্তিত নই। তবে এসব ঘটনা যাতে পুনরায় না হয় সে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে আমরা কাজ করছি।' প্রকল্প পরিচালক বলেন, ধাক্কা লাগতে পারে এমন চিন্তা তাদের ছিল। কেননা, বড় নদীর মধ্য দিয়ে বড় বড় জাহাজ যাবে।

এ ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক (বাণিজ্যিক) আশিকুজ্জামানকে। কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে সংস্থার চেয়ারম্যান বরাবর তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আশিকুজ্জামান জানান, ফেরিটি শিমুলিয়ার ভাসমান ওয়ার্কশপে মেরামত করা হচ্ছে। এটি মেরামতের পর আবার সচল হবে।

প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন যাত্রী জানান, ঘটনার আকস্মিকতায় যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। অনেকের হাত, পা ও বুকে আঘাত লেগেছে। কেউ কেউ রক্তাক্ত হন। গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী যাত্রী সিরাজুল ইসলাম বেগ জানান, পদ্মা সেতুর খুঁটির সঙ্গে ফেরির ধাক্কা লাগার আগে কোনো রকম হুইসেল বা ঘণ্টা বাজানো হয়নি, যাতে যাত্রীরা সতর্ক হতে পারেন। আহত যাত্রী আরিফ হোসেন জানান, বিপদ সংকেত দিলে এত যাত্রী আহত হতো না।

সেতুর খুঁটির সঙ্গে ধাক্কার ঘটনায় আহত ফেরির বাবুর্চি ইউসুফ আলী বলেন, তিনি মাছ কাটছিলেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ফেরির লোহার খুঁটিতে ধাক্কা খান। এতে তার মাথা ফেটে রক্ত বের হয়। ফেরির দোতলায় থাকা ক্যান্টিনের ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। ধাক্কায় অন্তত তিনটি ফ্রিজে থাকা কাঁচা মাছ-মাংস, জুস ও পানীয় জলের বোতল এবং রান্না করা খাবার মেঝেতে পড়ে নষ্ট হয়ে গেছে।

থানায় জিডি :এ ঘটনায় থানায় জিডি করা হয়েছে। সেতু বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের মাদারীপুরের শিবচর থানায় এই জিডি করেন। জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ফেরির ধাক্কায় পদ্মা সেতুর ১৭ নম্বর পিয়ার পাইল ক্যাপের উপরিভাগ ও সাইট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আব্দুল কাদের জানান, এর আগেও এমন ঘটনা ঘটেছে। লিখিত ও মৌখিকভাবে সচেতনতার সঙ্গে ফেরি চলাচলের জন্য বিআইডব্লিটিসি কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। এমন ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনাও ঘটতে পারে এবং পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে। ফেরিটির ফিটনেস ছিল কিনা, চালকের যথাযথ যোগ্যতা, শারীরিক সুস্থতা বা অবহেলা ছিল কিনা এসব বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে জিডিতে। শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিরাজ হোসেন জানান, সাধারণ ডায়েরিটি নথিভুক্ত করে সহকারী পরিদর্শক আমির হোসেনকে তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত করা হয়েছে।



মন্তব্য করুন