ভারতের প্রখ্যাত নারীবাদী লেখক, প্রশিক্ষক ও অধিকারকর্মী কমলা ভাসিন মারা গেছেন। গতকাল শনিবার ভোরে তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন। খবর দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের।

গত শতাব্দীর সত্তরের দশক থেকে ভারতসহ পুরো দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে নারীর অধিকার আদায়ের আন্দোলনে সোচ্চার ছিলেন কমলা ভাসিন। ২০০২ সালে তিনি 'সঙ্গত' নামে একটি সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, যা প্রত্যন্ত অঞ্চলের সুবিধাবঞ্চিত নারীদের নিয়ে কাজ করে।

লিঙ্গতত্ত্ব, সমতা, মানবাধিকার, পুরুষতন্ত্র নিয়ে তার লেখা বইগুলো অন্তত ৩০টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। তার লেখা বইয়ের মধ্যে রয়েছে 'সতরঙ্গি লাড়কে', 'সতরঙ্গি লাড়কিয়া' ইত্যাদি।

কমলা ভাসিনের জন্ম ১৯৪৬ সালের ২৪ এপ্রিল। তিনি রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তরকরে পশ্চিম জার্মানির মুনস্টার বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়াশোনা করেন। জার্মানির ফাউন্ডেশন ফর ডেভেলপমেন্ট ওরিয়েন্টেশন কেন্দ্রে বেশ কিছুদিন কাজ করে কমলা নিজ দেশে ফিরে আসেন। বাকি জীবনটা তিনি কাটান দেশের প্রান্তিক নারীদের অধিকারের কথা বলে।

স্থানীয় অধিকারকর্মী কবিতা শ্রীবাস্তব টুইট বার্তায় বলেছেন, 'ভারত ও দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে নারী অধিকার আন্দোলনের ক্ষেত্রে তার মৃত্যু একটি বিশাল ধাক্কা। তিনি পুরো জীবনটাকে উদযাপন করেছিলেন। কমলা, আপনি আমাদের হৃদয়ে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।'

তিনি বিশ্বব্যাপী নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে 'ওয়ান বিলিয়ন রাইজিং' ক্যাম্পেইনের দক্ষিণ এশিয়ার সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেছেন। এর অংশ হিসেবে ২০২০ সালে তিনি বাংলাদেশ সফর করেন। নারীর প্রতি সহিংসতাকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় যুদ্ধ আখ্যা দিয়ে এই অবস্থার পরিবর্তনে ভয়মুক্ত হয়ে নারীদের নিজেদের বদলে ফেলার আহ্বান জানান তিনি।

গ্রামাঞ্চলে বেড়ে ওঠা কমলা খুব সহজেই প্রান্তিক মহিলাদের সমস্যার কথা বুঝতেন। বিজ্ঞাপনী পণ্যতে নারীদের যেভাবে উপস্থাপন করা হয় তার বিরুদ্ধে সর্বদা মুখ খুলেছেন তিনি।

মন্তব্য করুন