কালকিনি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

প্রকাশ: ২৬ আগস্ট ২০১৪      

কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি

কালকিনি উপজেলার ডাসার সাবেক ইউপি সদস্য জাহিদ শরীফ সাব-রেজিস্ট্র্রার ও দলিল লেখকদের সাথে যোগসাজশ করে মৃত ব্যক্তিকে জীবিত দেখিয়ে ৭৩ শতাংশ জমি হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি জানাজানি হলে সাব-রেজিস্ট্র্রি অফিসের কর্মকর্তারা সম্পন্ন করা দলিলটি পুড়িয়ে ফেলেন এবং ওই দলিলের নম্বরে আরেকটি দলিল সম্পন্ন করে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে দলিল সম্পন্নের ফেরত রসিদে জাহিদ শরীফের নাম থাকায় বিষয়টির প্রমাণ রয়েছে এবং তা নিয়ে ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।
গত ১৯ আগস্ট উপজেলার ডাসার এলাকার বেতবাড়ি গ্রামের মৃত আ. মান্নান শরিফের ছেলে সাবেক ইউপি সদস্য জাহিদ শরীফ একই গ্রামের সৈয়দ আজিজকে পিতা সাজিয়ে পৈতৃক ৭৩ শতাংশ জমি নিজের নামে দলিল করে নেওয়ার পাঁয়তারা চালায়। উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মোটা অঙ্কের ঘুষ দিয়ে ম্যানেজ করে উদ্দেশ্য হাসিল করে। দলিল সম্পন্ন করার পরে বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। ফলে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের কর্মকর্তারা ওই দলিলটি পুড়িয়ে ফেলে এবং একই নম্বরে খালেক চৌকিদারকে দাতা ও জোনায়েত হোসেনকে গ্রহীতা করে ১১ শতাংশ জমির আরেকটি দলিল সম্পন্ন করে। প্রতারণাকারী ইউপি সদস্য জাহিদের বড় ভাই জহিরুল শরিফ জানান, ৫ ভাই ও ৫ বোন রেখে তাদের বাবা ২০১২ সালের ২৭ নভেম্বর মারা যান। অথচ তার জমি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস তার ছোট ভাইয়ের নামে দেওয়ার পাঁয়তারা চালাচ্ছে। উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ইলিয়াস হোসেন বলেন, 'মৃত ব্যক্তির নাম ব্যবহার করে দলিল সম্পন্ন করার চেষ্টা করায় তারা দলিল লেখক প্রদীপের সদস্যপদ সমিতি থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।'
উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার বাদলকৃষ্ণ বিশ্বাস বলেন, তিনি কোনো ব্যাপারে সাংবাদিকদের তথ্য দিতে বাধ্য নন।