মার্কেট নির্মাণের জন্য চলছে নদ ভরাট

প্রকাশ: ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬      

ফরিদপুর অফিস ও চরভদ্রাসন প্রতিনিধি

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদরে অবস্থিত ভুবনেশ্বর (বর্তমান লোহারটেক কোল বলে পরিচিত) নদের আনুমানিক সাতশ' ফুট দৈর্ঘ্য এবং ৫০ ফুট প্রস্থের জায়গা ভরাট করে সড়ক ও মার্কেট নির্মাণ করা হচ্ছে। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিজেই এ কাজের তদারকি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
চরভদ্রাসন উপজেলা ভূমি কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, নদের পাড় সংলগ্ন ১৬৪ নম্বর চরভদ্রাসন মৌজার পেডি খতিয়ানের হাল দাগ ১০০৯৯, ১০১০৪, ১০১০৫, ১০১০৯, ১০১১০, ১০৩৯১, ১০৪১২ দাগে মোট জমি ৫৫ শতাংশ। ওই জমির দলিল ও রেকর্ড মূলে মালিক ছিলেন এলাকার কয়েক ব্যক্তি। পরে ওই জমি নদে চলে যাওয়ায় সরকারি এক নম্বর খাস খতিয়ানে চলে যায়। তবে ওই জমির মালিকানা নিয়েও সরকারের সঙ্গে এলাকাবাসীর পাঁচটি মামলা রয়েছে। মামলা নিষ্পত্তি হওয়ার আগেই ওই জমিতে সড়ক ও সড়কের পশ্চিম পাশে দোকান নির্মাণের জন্য চলছে নদী ভরাটের কাজ।
বর্তমানে খনন যন্ত্র দিয়ে (ড্রেজিং) নদ থেকে বালু তুলে নদীর অংশবিশেষ ভরাটের কাজ চলছে এক মাস ধরে। নদ ভরাট করে সেখানে ৭০ থেকে ৮০টি দোকান তৈরি করা হবে। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে আড়াই থেকে তিন লাখ টাকার বিনিময়ে দোকানের পজিশন বরাদ্দও দেওয়া হয়েছে। এ বরাদ্দের টাকা দিয়ে এ কাজ করা হচ্ছে।
অভিযোগ রয়েছে, এ কাজে প্রশাসনকে সহায়তা করছেন চরভদ্রাসনের আনোয়ার মোল্লা, মোসলেম উদ্দিন, সলেমান মোল্লা গংরা। দলিল ও রেকর্ড মূলে মালিকের ওয়ারিশরা বাধা দিলে তারা (আনোয়ার গংরা) বাধা উপেক্ষা করে নদ ভরাটের কাজ অব্যাহত রাখে। আনোয়ার মোল্লা তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, নদী ভরাটের জায়গায় তার নামে কোনো প্লট নেই। সরকারি জায়গা সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েই ভরাটের কাজ করছে বাজারের উন্নয়নের জন্য।
চরভদ্রাসন উপজেলা সদরের বাজার সংলগ্ন নদের ওই অংশ ভরাট করা হচ্ছে। আগে চরভদ্রাসন জামে মসজিদ সংলগ্ন ধানহাটা থেকে উত্তরে আলী খানের টিনের দোকানের পাশ দিয়ে নদ ভরাট করে নির্মাণ করা এ সড়কটি হাসপাতাল রোডের সঙ্গে সংযোগ দেওয়ার কথা। উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের সার্ভেয়ার মো. ফারুক আলম জানান, বাজারের যানজট নিরসনে উপজেলা সমন্বয় কমিটির সভায় নদের অংশবিশেষ ভরাট করে এ সড়ক নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়। এজন্য ইউএনওকে আহ্বায়ক করে চরভদ্রাসন বাজার বিকল্প সড়ক বাস্তবায়ন কমিটিও গঠন করা হয়।
চরভদ্রাসন উপজেলার সহকারী কমিশনার ভূমি পারভেজ চৌধুরী বাজার সম্প্রসারণ, সড়ক নির্মাণ ও দোকান বরাদ্দের জন্য ভরাটের কাজ করা হচ্ছে স্বীকার করে বলেন, এটি সরকারি কোনো কাজ নয়, এ কাজের জন্য কোনো বাজেটও নেই। এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ছিল বাজারের যানজট কমানোর। এ নিয়ে উপজেলা উন্নয়ন সমন্বয় কমিটির সভায়ও আলোচনা হয়েছে। এ কারণে জনস্বার্থ বিবেচনা করে রাস্তার নির্মাণ ও দোকান বরাদ্দের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাই দোকান বরাদ্দের টাকা দিয়েই কাজ করা হচ্ছে।
চরভদ্রাসন বাজার বণিক সমিতির সভাপতি শহিদ মোল্লা জানান, নদ ভরাটের সঙ্গে বাজার বণিক সমিতির কোনো সম্পর্ক নেই।
ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শহীদুল ইসলাম জানান, চরভদ্রাসনে ভুবনেশ্বর নদের অংশবিশেষ ভরাট করার জন্য তাদের কাছে কোনো অনুমতি চাওয়া হয়নি। তিনি নিজে এ বিষয়ে কিছু জানেন না। তিনি এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পাউবোর কর্মকর্তাদের ঘটনাস্থলে পাঠাবেন।
ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক সরদার সরাফত আলী জানান, এ বিষয়টি তারও জানা নেই। তিনি জেনে, পরিবেশ রক্ষার্থে যা যা করার প্রয়োজন সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।