গ্যাস সুবিধাবঞ্চিত কবিরহাট উপজেলা

দেখার সুযোগ থাকলেও ভোগের সুবিধা নেই

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

নোয়াখালী (দক্ষিণ) প্রতিনিধি

নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার তিন লাখের বেশি মানুষ গ্যাস সুবিধা থেকে বঞ্চিত।
পাশের উপজেলা কোম্পানীগঞ্জের সিরাজপুরের সুন্দলপুরে দুই বছর ধরে গ্যাস উত্তোলন হয়। কবিরহাট থেকে সিরাজপুরের দূরত্ব মাত্র ৬ কিলোমিটার। কিন্তু কবিরহাটবাসী আজও গ্যাস ব্যবহারের সুবিধা পায়নি। এ যেন দেখার সুযোগ থাকলেও ভোগের সুযোগ নেই।
বিগত সরকার আমলে নোয়াখালী সদর উপজেলার নরোত্তমপুর, সুন্দলপুর, কোম্পানীগঞ্জের ধানসিঁড়ি, ঘোষবাগ, চাপরাশিরহাট, ধানশালিক, বাটাইয়া ইউনিয়ন নিয়ে কবিরহাট উপজেলা গঠন করা হয়। কিছু দিনের মধ্যেই সরকারের সফল সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ঐকান্তিক ইচ্ছায় কবিরহাট পৌরসভা ঘোষিত হয়।
নোয়াখালী সদরসহ কবিরহাট, সুবর্ণচর উপজেলা নিয়ে নোয়াখালী-৫ সংসদ এলাকা গঠিত। এখানের সংসদ সদস্য নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামূল করিম চৌধুরী। কবিরহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন এমপিপত্নী কামরুন নাহার শিউলী। কবিরহাট পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বিশিষ্ট সমাজসেবক উদীয়মান নেতা জহিরুল হক রায়হান।
বিএনপি সরকারের আইনমন্ত্রী প্রভাবশালী নেতা ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক, ঢাকা সিটি করপোরেশন মেয়র আনিসুল হক, ইসলামী ব্যাংকের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিনসহ অনেক গুণী মানুষকে নিয়ে এলাকাবাসী গর্ব করেন।
কবিরহাট বাজারের ব্যবসায়ী কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও কবিরহাট প্রেস ক্লাবের সভাপতি জহিরুল হক বলেন, ৬ কিলোমিটার দূরত্বে পার্শ্ববর্তী উপজেলায় গ্যাস উত্তোলন হয়ে প্রতিদিন জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়। কিন্তু সংযোগের অভাবে কবিরহাটবাসী গ্যাস সুবিধা থেকে বঞ্চিত।
কবিরহাট পৌরসভার মেয়র জহিরুল হক রায়হান বলেন, গ্যাসস্বল্পতা জাতীয় সমস্যা। তবুও তাদের চেষ্টার ফলে প্রাথমিকভাবে সীমিত পরিমাণে গ্যাস সরবরাহের কাজ অনুমোদন করা হয়েছে। যার কাজ অল্প দিনের মধ্যে শুরু হবে।