রাজশাহীতে ডাকাত সন্দেহে আটক ১৯

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৬      

রাজশাহী ব্যুরো

মহানগরীর বায়া ও পবা থানা এলাকায় ডাকাত সন্দেহে মাইক্রোবাসসহ দুটি ঘটনায় ১৯ জনকে আটক করা হয়েছে। পরে তাদের পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়। শুক্রবার রাতে দুটি আলাদা ঘটনায় তাদের আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে পুলিশ ধারালো হাঁসুয়া, ছোরা, চাকু ও লাঠিসোটা উদ্ধার করেছে। তারা ডাকাতি না সাম্প্রতিক সময়ের বড় কোনো নাশকতা ঘটাতে এলাকায় এসেছিল তা জানতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।
রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) মুখপাত্র ও রাজপাড়া থানার সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম জানান, শুক্রবার বিকেলে বায়া এলাকায় দুটি মাইক্রোবাস টহল দিচ্ছিল। এ নিয়ে স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তারা সড়ক ঘেরাও করে মাইক্রোবাস দুটি থামানোর চেষ্টা করেন। এ সময় সাদা রঙের একটি মাইক্রোবাস পালিয়ে গেলেও কালো রঙের মাইক্রোবাস আটক করা হয়।
পরে স্থানীয়রা এই মাইক্রোবাসের ভেতর থেকে ৯ যুবক ও এক নারীকে আটক করে শাহমখদুম থানায় খবর দেন। আটককৃতরা হলো চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জের তুষাড়, সুজন, রনি, জনি, কুরবান, রবিউল, রানা, ওমর ফারুক, মামুন ও নাসিমা।
শাহমখদুম থানার ওসি (তদন্ত) শেখ মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা জানান, আটককৃতরা ডাকাতি অথবা বড় কোনো নাশকতা করতে এলাকায় এসেছিল। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।
এদিকে শুক্রবার রাত ১টার দিকে পবা থানার তেবাড়িয়া এলাকায় লাঠিসোটা ও দুটি ছোরা নিয়ে রাস্তার পাশে জড়ো হয়ে বসে থাকার সময় পুলিশ আটক করেছে ৯ জনকে। পবা থানার ওসি শরিফুল ইসলাম বলেন, কাউকে হত্যা করা বা ডাকাতির প্রস্তুতি নিতে তারা লাঠিসোটা, দুটি ছোরা নিয়ে বসেছিল।