বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে স্কুল হাজিরা

প্রকাশ: ২২ জানুয়ারি ২০১৭

এম সেকান্দর হোসাইন, সীতাকুণ্ড

যুগ যুগ ধরে চলে আসা স্কুল হাজিরা পদ্ধতির পরিবর্তন আসছে। ডিজিটালাইজ হচ্ছে সীতাকুণ্ডের তিন বিদ্যালয়ে হাজিরা নেওয়ার পদ্ধতি। এখন খাতা-কলমের পরিবর্তে উপস্থিতি গ্রহণের জন্য ব্যবহৃত হবে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি। ডিজিটাল এ হাজিরা পদ্ধতিতে শ্রেণি কার্যক্রমের সময়, মাসিক ও গড় হাজিরা বের করা, বিদ্যালয়ের প্রবেশ ও বের হওয়ার মুহূর্তে খুদেবার্তার মাধ্যমে সন্তানের অবস্থান জেনে যাবে অভিভাবকরা। ফলে অভিভাবকদের দুশ্চিন্তা কিছুটা কমবে। নতুন বছরের শুরুতে উপজেলার শীতলপুর উচ্চ বিদ্যালয়, কুমিরা আবাসিক বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ ও এমএ কাসেম রাজা উচ্চ বিদ্যালয়ে বায়োমেট্রিক প্রযুক্তির যন্ত্র সংযোজন করা হয়। কার্যক্রম শুরু না হলেও অল্প সময়ে কাজ শুরু করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রতিষ্ঠানপ্রধানরা। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, এ হাজিরা পদ্ধতি ব্যবহারে শ্রেণি শিক্ষকদের কাজ কমে যাবে। হাজিরা ডাকতে হবে না, ফলে শ্রেণিতে প্রথম পিরিয়ডে পাঠ কার্যক্রমের সময় বেড়ে যাবে। শিক্ষার্থীরা আরও বেশি উপকৃত হবে। তিনি বলেন, এতে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি যেমন বাড়বে, শিক্ষার্থীরা পড়াশোনায় আরও মনোযোগী হবে। এ ছাড়া জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়া রোধে কোনো শিক্ষার্থী ১০ দিন অনুপস্থিত থাকলে তা সফটওয়্যারের মাধ্যমে এক ক্লিকে (খুব সহজে) বের করে অভিভাবকদের জানানো যাবে। এতে অভিভাবকরা তার সন্তানের প্রতি আরও সতর্ক দৃষ্টি দিতে পারবেন। এ ছাড়া উপবৃত্তির জন্য প্রয়োজনীয় উপস্থিতি বের করা সহজ হবে। যা খাতা দেখে বের করা কঠিন ও সময়সাপেক্ষ।