চট্টগ্রামে শাহরিয়ার কবির

রাষ্ট্রীয় সব ক্ষেত্রে সমান অধিকার নিশ্চিত করতে হবে

প্রকাশ: ০৭ এপ্রিল ২০১৮      

চট্টগ্রাম ব্যুরো

লেখক ও সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির বলেছেন, 'সংখ্যালঘুরা দেশের বাইরের মানুষ নয়। তারা যাতে নিরাপদ ও মর্যাদার সঙ্গে বসবাস করতে পারে বিষয়টি রাষ্ট্রকেই নিশ্চিত করতে হবে। কারণ এক দেশে দুই আইন চলতে পারে না। শিক্ষা, চাকরিসহ রাষ্ট্রীয় সব ক্ষেত্রে সবার সমান অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। একই সঙ্গে অর্পিত সম্পত্তি থেকে সংখ্যালঘুরা বঞ্চিত না সেই ব্যাপারে সরকারকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।' হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের চট্টগ্রাম বিভাগীয় মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় নগরীর মুসলিম ইনস্টিটিউট হলে এই মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশের উদ্বোধন করেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ঊষাতন তালুকদার এমপি। এতে বিপুলসংখ্যক মানুষ অংশগ্রহণ করেন। জাতীয় সংসদে ধর্মীয়, জাতিগত সংখ্যালঘু ও আদিবাসী জনগোষ্ঠীর যথাযথ প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা, সাংবিধানিক বৈষম্য বিলোপকরণ এবং সমঅধিকার ও সমমর্যাদা নিশ্চিত করাসহ সাত দফা দাবিতে এই মহাসমাবেশের আয়োজন করা হয়।

সংগঠনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী পরিমল চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা ছিলেন পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত। সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোটের সভাপতি মাওলানা জিয়াউল হক। অতিথি বক্তা ছিলেন রাজনীতিবিদ পংকজ ভট্টাচার্য্য, সংগঠনের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিয়রঞ্জন দত্ত প্রমুখ। সমাবেশ শুরুর আগে চিত্রনায়ক পঙ্কজ বৈদ্য সুজনের উপস্থাপনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে অর্পিত সম্পত্তিতে অধিকার নিশ্চিত করাসহ সাত দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন রানা দাশগুপ্ত। তিনি বলেন, রাজনীতিতে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে। চাকরির ক্ষেত্রে সংখ্যালঘুদের ২০ শতাংশ পদায়ন নিশ্চিত করতে হবে। সংবিধানে ১২ অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ২ক অনুচ্ছেদ বিলোপ করে বাহাত্তরের সংবিধানের মূল আদলে রাজনীতিতে ধর্মীয় নিরপেক্ষ নীতির বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।'