গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান ও যানবাহন ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে।

পুলিশের কাজে বাধা ও পুলিশকে আহত করার অভিযোগে গোপালগঞ্জ সদর থানার এসআই সুশান্ত কুমার খান বাদী হয়ে ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।

অন্যদিকে, শিক্ষর্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের মার্কেটে ব্যাপক ভাংচুর ও আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় মার্কেট মালিক সাজেদা বেগম ৪৭ জনের নাম উল্লেখসহ ৭-৮শ' জন অজ্ঞাত শিক্ষার্থীকে আসামি করে থানায় অন্য একটি মামলা করেছেন।

গোপালগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, ৪ জুলাই রাতে ও ৫ জুলাই দিনভর গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় শিক্ষার্থী ও গোবরা গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ, যানবাহন ভাংচুর, মোটরসাইকেলে আগুন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এতে শিক্ষার্থী, ৪ পুলিশ সদস্য ও গ্রামবাসীসহ অন্তত ৫০ জন আহত হয়।

তিনি আরও জানান, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গোবরা গ্রামের ছেলেরা ফুটবল খেলার সময় এক ছাত্রীকে উদ্দেশ্য করে অশালীন মন্তব্য করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র এ ঘটনার প্রতিবাদ করে। পরে বহিরাগত গ্রামের যুবকরা তাকে মারধর করে। এ নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

মন্তব্য করুন