বাগেরহাটে পুলিশের বিশেষ অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী ও জামায়াত-শিবির কর্মীসহ ৪৬ জনকে আটক করা হয়েছে। শুক্রবার থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত পুলিশ জেলার ৯ উপজেলায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। আটকৃতদের মধ্যে ৪ জন মাদক ব্যবসায়ী, ৯ জামায়াত-শিবির কর্মী এবং অন্যরা বিভিন্ন নিয়মিত মামলার আসামি বলে জেলা পুলিশ জানিয়েছেন। এ সময় ১ কেজি ২৩৭ গ্রাম গাঁজা, ৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

জেলা পুলিশ জানায়, বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার পাগলা শ্যামনগর গ্রামের আব্দুস সামাদের বাড়ি থেকে নাশকতা সৃষ্টির পরিকল্পনার অভিযোগে জামায়াত ও ছাত্রশিবিরের ৯ নেতাকর্মীকে আটক করে পুলিশ। আটকরা হলেন- ফকিরহাট উপজেলার জামায়াতে ইসলামীর সাবেক নায়েবে আমির মওলানা ইউনুস আলী, উপজেলা ইসলামী ছাত্র শিবিরের সভাপতি শেখ ফরহাদ হোসেন, জামায়াতের কর্মী শেখ হাবিবুর রহমান, গোলাম হোসেন পাটোয়ারী, আব্দুর রহমান সরদার, মতলেব শেখ, আব্দুল্লাহ শেখ, শেখ ইদ্রিস আলী ও আব্দুস সামাদ। তাদের সবার বাড়ি ফকিরহাট উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে বলে ফকিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু জাহিদ শেখ জানান। তবে জামায়াতে ইসলামীর দাবি একটি আকিকা অনুষ্ঠান থেকে তাদের নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ।

অন্যদিকে, মোল্লাহাট উপজেলার কাহালপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৭ গ্রাম গাঁজাসহ ওই গ্রামের লাহু মোল্লার ছেলে এনায়েত মোল্লা (৩৫) ও জালাল মোল্লার ছেলে শাহা আলম মোল্লাকে (৩০) আটক করে মোল্লাহাট থানা পুলিশ। মোরেলগঞ্জ উপজেলার তেলিগাতী এলাকায় অভিযান চালিয়ে বারেক শেখের ছেলে কামরুল শেখকে (৩৫) আটক করা হয়। একই সঙ্গে মোরেলগঞ্জ পৌরসভার কাঁঠালতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে থানা পুলিশ ১ কেজি গাঁজা উদ্ধার করে। তবে এখান থেকে কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। অভিযান টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায় বলে মোরেলগঞ্জ থানার ওসি জানান। মোংলা থানার শেওলাবুনিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২শ' গ্রাম গাঁজা ও ৫০ পিস ইয়াবাসহ স্থানীয় আবুল বাসারের ছেলে রবিউল ইসলামকে (২০) আটক করে মোংলা থানা পুলিশ।

মন্তব্য করুন