ঝিনাইদহের শৈলকূপায় দু'দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। উপজেলার ৬নং সারুটিয়া ইউনিয়নের ভাটবাড়িয়া গ্রামে শনিবার সকাল ১১টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের ঝিনাইদহ ও শৈলকূপা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে সারুটিয়া ইউনিয়নের বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান মামুন ও সাবেক ইউপি সদস্য আজিজারের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। কয়েক মাস আগে আজিজারের ওপর হামলা এবং গত রোববার বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান সমর্থক রানার ওপর হামলার ঘটনায় কয়েকটি বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এরই সূত্র ধরে শনিবার সকালে ভাটবাড়িয়া গ্রামের আবু কালামের ছেলে তুহিনকে প্রতিপক্ষরা ধাওয়া দিলে বেলা ১১টার দিকে উভয় গ্রুপের কর্মী-সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে ইমরান, মনিরুল, সাইফুল, হাফিজ, রফিউদ্দিন, মশিউর, গোলাম নবী, রিয়াজুল, রাসেল, রায়হান, আনোয়ার, বদরুজ্জামান, আক্তারসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন। আহতদের শৈলকূপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

শৈলকূপা থানার ওসি আলমগীর হোসেন জানান, গত রোববার ভাটবাড়িয়া গ্রামে রানার ওপর হামলা ও বাড়িঘর ভাংচুরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে শনিবারও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় দেশি অস্ত্রের আঘাতে বেশ ক'জন গ্রামবাসী আহত হয়। বর্তমানে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

মন্তব্য করুন