নাজিরপুরে যৌতুকের বলি গৃহবধূ

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি

পিরোজপুরের নাজিরপুরে যৌতুকের কারণে রোজিনা (৩৫) নামের এক গৃহবধূ মারা গেছেন। স্বামীর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হয়ে অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ সেবন করে অসুস্থ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রোববার সকালে তিনি মারা যান। তার মিতা নামে ১৩ বছরের একটি মেয়ে ও আলিফ নামে ৭ বছরের একটি ছেলে রয়েছে।

রোজিনার বাবা আলী আকবর জানান, ১৫ বছর আগে উপজেলার সেখমাটিয়া ইউনিয়নের রামনগর গ্রামের আলতাফ সরদারের ছেলে শাহাজাদা মিলনের সঙ্গে রোজিনার বিয়ে হয়। কিছুদিন সুখে-শান্তিতে ঘর সংসার করলেও এক পর্যায়ে রোজিনাকে না জানিয়ে গোপনে মিলন এক এক করে আরও ৫টি বিয়ে করে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে পারিবারিক কলহ লেগেই থাকত। সর্বশেষ ময়না নামে ঢাকায় বসবাসরত এক মেয়েকে বিয়ে করে। এক পর্যায়ে স্থানীয় গণ্যমান্যদের নিয়ে বৈঠকে বসলে সেখানে মিলন তার ঢাকায় বসবাসরত স্ত্রী ময়নাকে তালাক দিয়ে রোজিনাকে নিয়ে সংসার করার অঙ্গীকার করে এবং ৪ লাখ টাকা রোজিনার বাবার কাছে যৌতুক দাবি করে। রোজিনার বাবা মিলনকে ৪ লাখ টাকা দিলেও মিলন ময়নাকে তালাক না দিয়ে তার সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রাখে। সম্প্রতি রোজিনা মিলনকে আসামি করে আদালতে মামলা করেন। মামলা করায় মিলন ক্ষিপ্ত হয়ে রোজিনাকে তালাক দেয়। গত শনিবার সকালে ঘুমের ওষুধ সেবন করে অসুস্থ হয়ে পড়ে। রোববার সকালে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।