আলফাডাঙ্গার ১২ ছাত্রকে পিটিয়ে জখম

প্রকাশ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮      

বোয়ালমারী (ফরিদপুর) প্রতিনিধি

আন্তঃস্কুল ও মাদ্রাসার ফুটবল খেলার দ্বন্দ্বের জের ধরে ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা উপজেলার এজেড পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ১২ ছাত্রকে পিটিয়ে জখম করেছে একই উপজেলার শিরগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ও অভিভাবকরা। আহত ১১ জনকে আলফাডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। একজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। সোমবার বিকেলে বোয়ালমারী উপজেলার রামচন্দ্রপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রদের বহনকারী মাইক্রোবাসটি ব্যাপক ভাংচুর করা হয়। এ ঘটনায় পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে সোমবার রাতে বোয়ালমারী থানায় মামলা করেছেন। মামলায় ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে ও ৫০-৬০ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

জানা যায়, গত ৬ সেপ্টেম্বর আলফাডাঙ্গা পাইলট স্কুল মাঠে আন্তঃস্কুল ফুটবল খেলায় দুই স্কুলের খেলোয়াড়দের মধ্যে কথা কাটাকাটির পর শিরগ্রাম স্কুলের ছেলেদের মারধর করা হয়। এর জের ধরে সোমবার শিরগ্রাম স্কুলের ছাত্র আকিদুলের বাবা কাজী আবুল খায়ের ও খণ্ডকালীন শিক্ষক এরশাদের নেতৃত্বে লাঠিসোটা, লোহার রড নিয়ে রামচন্দ্রপুর এলাকায় বিকেলে পাইলট স্কুলের ছাত্রদের ওপর হামলা চালানো হয়। পাইলট স্কুলের ছাত্ররা জেলা পর্যায়ের খেলায় অংশগ্রহণের জন্য ফরিদপুরে যাচ্ছিল।

বোয়ালমারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ছাত্রদের মারার ঘটনায় মামলা হয়েছে।