ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে পরাজয়

পরস্পরকে বহিস্কার দাবি দুই আ'লীগ নেতার

প্রকাশ: ১২ জানুয়ারি ২০১৯      

আশুগঞ্জ (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ) আসনে অল্প ভোটের ব্যবধানে হারেন কলার ছড়ি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মঈন উদ্দিন মইন। এ জন্য আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়কসহ কয়েকজন নেতার বিএনপিপ্রীতি ও ষড়যন্ত্রকে দায়ী করে তাদের বহিস্কার দাবি করেন তিনি।

অন্যদিকে সিংহ প্রতীকের অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধাকে মহাজোটের প্রার্থী দাবি করে তার পরাজয়ের জন্য কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন, মিথ্যাচার ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডকে দায়ী করে মঈন উদ্দিন মইনসহ অপর কয়েক নেতার বহিস্কার দাবি করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হাজি মো. ছফিউল্লাহ মিয়া। গত বুধবার রাতে ও বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পৃথক দুটি সংবাদ সম্মেলনে তারা এসব দাবি করেন। দলে বিভক্তি থাকা ক্ষতিকর স্বীকার করে মূলত মহাজোটের প্রার্থী নিয়ে বিতর্ক থাকায় এমনটি হয়েছে বলে মনে করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার। দ্রুত এসব দলীয় বিভক্তি নিরসন ও প্রত্যেক নেতাকর্মীর কর্মকাণ্ড যাচাই করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেন জানান তিনি।

আল মামুন সরকার বলেন, মূলত এ আসনে মহাজোটের প্রার্থী নিয়ে বিতর্ক থাকায় এমনটি হয়েছে। মঈন উদ্দিন আওয়ামী লীগ নেতা ও স্বতন্ত্র প্রার্থী। তিনি দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন কি-না, তা দল সিদ্ধান্ত নেবে। ছফিউল্লাহ বা তার সমর্থকদের বিরুদ্ধে বিএনপির পক্ষে কাজ করার যে অভিযোগ উঠেছে, তার যদি তদন্তে সত্যতা মেলে তবে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শিগগির সারাদেশের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়াতেও বর্ধিত সভা হবে। এতে বিভিন্ন  পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কর্মকাণ্ড যাচাই করা হবে। ফলে দলে কোনো বিভক্তি থাকবে না বলে তিনি আশা করেন।