২ মাস পর গৃহবধূ ইয়াসমিনের লাশ উত্তোলন

প্রকাশ: ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯      

মনিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি

হত্যাকাণ্ডের প্রায় দুই মাস পর আদালতের নির্দেশে পুলিশ গতকাল বুধবার মনিরামপুরের গৃহবধূ ইয়াসমিনের লাশ উত্তোলন করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আয়েশা সিদ্দীকা এবং থানার ওসি সহিদুল ইসলামের উপস্থিতিতে কবর থেকে লাশ উত্তোলন করা হয়।

মনিরামপুর থানার এসআই প্রশান্ত কুমার জানান, উপজেলার ফেদাইপুর গ্রামের মতিয়ার রহমানের স্ত্রী ইয়াসমিন গত ১০ ডিসেম্বর রাতে খাবার খেয়ে ঘুমাতে যান। ১১ ডিসেম্বর সকালে পরিবারের লোকজন বাড়ির পাশে গাছে ইয়াসমিনের লাশ ঝুলতে দেখে থানায় খবর দেয়। পরে লাশ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করা হয়। রিপোর্টে হত্যার কোনো আলামত না পাওয়ায় এবং ইয়াসমিনের পরিবার থেকে কোনো অভিযোগ না করায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই দাফন করা হয়।

তবে মৃত্যুর এক মাস পর স্বামী মতিয়ার রহমান বাদী হয়ে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে ১০ জানুয়ারি যশোর সিনিয়র চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা করেন। মামলায় আসামি করা হয় মতিয়ারের সাবেক ব্যবসায়িক পার্টনার বুলবুল ও তার বাবা আমিন উদ্দিনকে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই খান আবদুর রহমান জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য আদালতে আবেদন করলে গতকাল আদালতের নির্দেশে তা উত্তোলন করা হয়।