শীতে ঝরছে পানপাতা ক্ষতির মুখে চাষিরা

পিরোজপুর

প্রকাশ: ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পিরোজপুর প্রতিনিধি

শীতে ঝরছে পানপাতা ক্ষতির মুখে চাষিরা

পিরোজপুরের একটি পানের বরজ- সমকাল

তীব্র শীতে প্রচণ্ড ঠাণ্ডার কারণে পিরোজপুরে পান চাষিরা ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। ঠাণ্ডা ও কুয়াশায় লতা থেকে ঝরে যাচ্ছে পান। এ বছর চাষিরা ধারণা করছেন, জেলার পানচাষিদের কোটি টাকার ক্ষতি হবে।

শীত ও কুয়াশায় বরজে লতা থেকে পান পাতা হলুদ হয়ে ঝরে যাচ্ছে। বর্তমানে পানের বাজারমূল্য পোনপ্রতি ১৫০-২০০ টাকা থাকলেও এ ঝরা পান বিক্রি হচ্ছে প্রতি পোন ৫০-৬০ টাকায়।

পিরোজপুর সদর উপজেলার কদমতলা গ্রামের পানচাষি পংকজ দাস জানান, প্রতিবছর শীতের সময় পানের বরজে পলিথিনের আচ্ছাদনে শীত ঠেকালেও এ বছর একই ব্যবস্থা করেও কোনো কাজ হচ্ছে না। কয়েকদিন ধরে  প্রতিটি লতার পান হলুদ হয়ে মাটিতে পড়ে যাচ্ছে।

এখন বাজারে পান বিক্রি করার মৌসুম। সারা বছর বরজে কাজ করে এ সময় কিছুটা লাভের মুখ দেখেন পানচাষিরা; কিন্তু এ বছর লাভ তো দূরের কথা আসল টাকাই ঘরে আসবে কি-না, তা নিয়ে শঙ্কায় আছেন পানচাষিরা।

পিরোজপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রকৌশলী দিপঙ্কর চন্দ্র্র বালা জানান, জেলায় এ বছর ৭০৬ হেক্টর জমিতে পান চাষ হয়েছে। জেলা কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে পান চাষিদের শীতের সময় পলিথিন দিয়ে পানের বরজ ঢেকে ও চারপাশে বেড়া দিয়ে রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তবে এ বছর শীত একটু বেশি থাকার কারণে পানপাতা ঝরে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে কৃষি অফিসের কিছু করার থাকে না বলে জানান তিনি।

এদিকে, চাষিদের দাবি শীতের পরে যদি পানচাষিদের সরকারের পক্ষ থেকে সাহায্য সহযোগিতা দেওয়া হয়, তাহলে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন। তা নাহলে ক্ষতির সম্মুখিন হয়ে অনেকে পান চাষ করা বন্ধ করে দিতে পারেন।