রাস্তার গাইড ওয়াল ভেঙে ফেলার অভিযোগ

ভালুকা বন বিভাগ

প্রকাশ: ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের জামিরদিয়া মৌজার জামিরদিয়া আইডিয়েল মোড় থেকে কাশর রাস্তার (তরফসানি) এলাকায় বুধবার দুপুরে বন বিভাগ অভিযান চালিয়ে রাস্তার দু'পাশের ৪০০ ফুট গাইড ওয়াল ভেঙে দিয়েছে। বুধবার ওই রাস্তা নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, উপজেলা পরিষদের অনুরোধে জামিরদিয়া মৌজার ৬৭ ও ৭৩ নম্বর দাগের ওপর দিয়ে চলে আসা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিডি) মালিকানাধীন প্রায় দেড়শ' বছরের পুরাতন ওই সড়কটি প্রশস্তকরণের জন্য আরিফ টেক্সটাইল অ্যান্ড কম্পোজিট কারখানার ব্যক্তিগত অর্থায়নে ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল হাসেমের তত্ত্বাবধানে ওই রাস্তার গাইড ওয়াল নির্মাণকাজ চলে আসছিল। স্থানীয় বন বিভাগ ওই গাইড ওয়ালের জমি বনের দাবি করে ঘটনার দিন দুপুরে অভিযান চালিয়ে ভেকু দিয়ে ৪০০ ফুট গাইড ওয়াল ভেঙে ফেলে। অথচ ওই মৌজার ৭৩ নম্বর দাগে বনের কোনো জমি নেই। ৬৭ নম্বর দাগে বনের দাবি থাকলেও গাইড ওয়াল নির্মাণস্থলে বনের জমি নেই। কারণ, ৬৭ নম্বর দাগটি বন বিভাগের এফএসও আদালতের নির্দেশে বহু আগেই ডিমারগেশন করা হয়েছে।

জামিরদিয়া এলাকায় শিল্প-কারখানা গড়ে ওঠায় সড়কটি প্রশস্ত করার জন্য গাইড ওয়াল নির্মাণ শুরু করলে বন বিভাগ তা ভাংচুর করে। প্রতিবাদে সংশ্নিষ্ট মিলের প্রতিনিধি ও এলাকাবাসীর পক্ষে স্থানীয় সমাজসেবক হাজি বেলাল ফকির জামিরদিয়া মাস্টারবাড়ির নিজ বাড়িতে ওই সংবাদ সম্মেলন করেন। এলাকাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে রাস্তাটি প্রশস্ত করার জন্য উপজেলা প্রকৌশলী (্‌এলজিইডি) সরেজমিনে গিয়ে রাস্তার মাপজোক করে দিয়ে আসেন। সেই মাপের পরিপ্রেক্ষিতে রাস্তার গাইড ওয়াল নির্মাণ করা হয়। কিন্তু বন বিভাগের লোকজন ব্যক্তিগত স্বার্থে ওই রাস্তার গাইড ওয়ালটি ভেঙে ফেলে।

বন বিভাগের ভালুকা রেঞ্জ অফিসার মোজাম্মেল হোসেন বলেন, সড়কের নির্মাণাধীন গাইড ওয়ালটি বন বিভাগের জমিতে করা হয়েছে। এ কারণে সেই জায়গা উদ্ধার করা হয়েছে।