নেত্রকোনায় সেই প্রধান শিক্ষক ১৫ দিনের জন্য বরখাস্ত

প্রকাশ: ১৩ এপ্রিল ২০১৯

নেত্রকোনা প্রতিনিধি

শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলনের মুখে নেত্রকোনা সদর উপজেলার মৌগাতী ইউনিয়নের মারাদিঘী গোলাম হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানকে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি সাময়িকভাবে ১৫ কার্যদিবসের জন্য বরখাস্ত ও বেতনের অর্ধেক প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ওই বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক তরুণী কান্ত দাসকে। গত ২৩ মার্চ থেকে ওই শিক্ষককে অপসারণের দাবিতে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা লাগাতার ক্লাস বর্জন শুরু করে।

সদর উপজেলার মারাদিঘী গোলাম হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান প্রায়ই বিদ্যালয়ের মেয়ে শিক্ষার্থীদের নানাভাবে কটূক্তি করতেন। শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের সঙ্গে অসদাচরণ করতেন প্রধান শিক্ষক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়েও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আপত্তিকর মন্তব্য করেন ওই শিক্ষক। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছিল। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীরা জেলা শহরের শহীদ মিনারে এসে মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন দপ্তরে স্মারকলিপি পেশ করে। গত বুধবার বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির উদ্যোগে বিদ্যালয়ে আলোচনা সভা করে প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানকে ১৫ দিনের জন্য বরখাস্ত ও অর্ধেক বেতন প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মতিন খান। সভায় সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক তফসির উদ্দিন খান, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান আবুনী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মলয় কান্তি মজুমদার, বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক প্রণেশ চন্দ্র সরকার, বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর অভিভাবকসহ এলাকার নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

মারাদিঘী গোলাম হোসেন উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মতিন খান বলেন, শিক্ষার্থীদের ক্লাসে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।