তিন জেলায় আহত অর্ধশতাধিক

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

হবিগঞ্জ, নড়াইলের লোহাগড়া, সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকা ও উল্লাপাড়ায় পৃথক হামলা সংঘর্ষে অন্তত ৬৫ জন আহত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার এ হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

হবিগঞ্জ :হবিগঞ্জের মাধবপুরে পূর্বশত্রুতার জের ধরে সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ৩৫ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় ১৫ জনকে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার পুরাইকলা গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। মাধবপুর থানার (ওসি) চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, ওই গ্রামের দুলাই মিয়ার ছেলে পারভেজ মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের মিনাজ উদ্দিনের ছেলে বাবু মিয়ার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এরই জের ধরে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন দেশি অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

লোহাগড়া (নড়াইল): নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার গিলাতলা গ্রামে দু'পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে নারীসহ আটজন আহত হয়েছে। উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের গিলাতলা গ্রামে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সেন্টু খান গ্রুপের সঙ্গে কুবাদ খান গ্রুপের লোকদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে গতকাল সকালে উভয় পক্ষের নারী ও বাচ্চাদের ঝগড়া-বিবাদ হয়। এক পর্যায়ে সেন্টু খানের লোকজন লাঠিসোটা, ইটপাটকেল নিয়ে প্রতিপক্ষ কুবাদ খান সমর্থিত ইকবাল শেখ ও আকুব্বর শেখের বাড়িতে হামলা করলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এ সময় কুবাদ গ্রুপের তহমিনা খানম, কোহিনুর বেগম, মুরশিদুল ইসলাম, মাসুদ মোল্যা, ইকবাল শেখ, লালন শেখ, রিয়াদ শেখ, আকুব্বর শেখ আহত হয়। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ।

সিরাজগঞ্জ :সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার দুই মহল্লাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে নারীসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে মালা খাতুন, সাগর হোসেন, আলাউদ্দিন, মেরাজ উদ্দিন, হৃদয়, শাহীন ও সালামকে সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে পৌর এলাকার গয়লা ও একডালা মহল্লাবাসীর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। একডালা মহল্লার হাবিবুর রহমানের ছেলে নাসিরের নেতৃত্বে সোমবার রাতে যুবলীগ নেতা রুবেল হোসেনের বাড়িতে হামলা করা হয়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে উভয় মহল্লাবাসী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

উল্লাপাড়া (সিরাজগঞ্জ):উল্লাপাড়ার চর মোহনপুর গ্রামে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় দুটি বাড়ি ও একটি দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়। গত সোমবার রাতের এ ঘটনায় ৭ জন আহত হন। উল্লাপাড়া মডেল থানার ডিউটি অফিসার এএসআই রায়হান জানান, চর মোহনপুর গ্রামের মন্টু প্রামাণিক ও শাহজাহান আলীর সঙ্গে একই গ্রামের মামুন, আলামিন ও পর্বত আলীর গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এই দ্বন্দ্বের জেরে সোমবার রাতে মামুন গ্রুপের লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে মন্টু প্রামাণিক ও শাহজাহান আলীর বাড়ি এবং দোকানে হামলা চালায়।