চালক-হেলপারের স্বীকারোক্তি ছালাউদ্দিনকে পিষে হত্যার পর বাসে স্ত্রীর শ্নীলতাহানি

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৯      

গাজীপুর প্রতিনিধি

চলন্ত বাসের চাকায় পিষে ছালাউদ্দিনকে হত্যার পর তার স্ত্রী পারুলকে নিয়ে ঘাতক চালক রোকন উদ্দিন দ্রুত চলে যেতে থাকে। ছালাউদ্দিনের রক্তাক্ত দেহ পড়ে থাকে মহাসড়কের ওপর। বাসের ভেতরে থাকা পারুলের চিৎকার থামাতে মুখ চেপে ধরে হেলপার ও কন্ডাক্টর। এ সময় পারুলের শ্নীলতাহানি করে তারা। মঙ্গলবার বিকেলে গাজীপুর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ছালাউদ্দিন হত্যার ঘটনায় স্বীকারোক্তি দিয়ে এসব কথা জানায় চালক রোকন উদ্দিন ও হেলপার আনোয়ার হোসেন।

গাজীপুর সদরের ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বাঘেরবাজার এলাকায় গত রোববার সকালে আলম এশিয়া পরিবহনের একটি বাস থেকে যাত্রী ছালাউদ্দিনকে লাথি মেরে ফেলে বাসের চাকায় পিষে হত্যার ওই ঘটনা ঘটে।

গাজীপুর জেলার পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার জানান, আলম এশিয়া পরিবহনের বাসচালক রোকন উদ্দিন ও হেলপার আনোয়ার হোসেনকে গাজীপুর জেলা জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-১-এর বিচারক শামীমা রহমানের আদালতে হাজির করা হলে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এর আগে সোমবার রাতে প্রায় ১৬ ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস অভিযান চালিয়ে জয়দেবপুর থানা পুলিশ চালক রোকন উদ্দিনকে ধোবাউড়া-হালুয়াঘাট সীমান্ত এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। এর ছয় ঘণ্টা পর বাসের হেলপার আনোয়ারকেও পুলিশ গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।