নির্মাণ শেষ হতেই উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ

কুমারখালী

প্রকাশ: ৩০ জুন ২০১৯

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

নির্মাণ শেষ হতেই উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে কাজ শেষ হওয়ার কয়েক দিনের মধ্যেই আঙুলের খোঁচায় উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ - সমকাল

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে কাজ শেষ হওয়ার কয়েকদিনের মধ্যে কোটি টাকায় নির্মিত সড়কের পিচ আঙুলের খোঁচায় উঠে যাচ্ছে। নিম্নমানের কাজ, যথাযথ নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার না করা ও তদারকির অভাবে সড়কের এ অবস্থা হয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। কাজ চলাকালে স্থানীয় প্রকৌশলীদের জানালেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেননি। ফলে সরকারের কোটি টাকা গচ্চা যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কয়েকদিন আগে কুমারখালী উপজেলার লালন বাজার-ধর্মপাড়া পর্যন্ত এক কোটি দুই লাখ টাকা ব্যয়ে দেড় কিলোমিটার সড়ক পাকা করা হয়। এরই মধ্যেই পাকা সড়কের কার্পেটিং খালি হাতে টেনে তুলছেন স্থানীয়রা। বিটুমিনের পরিবর্তে পোড়া মোবিল ব্যবহার করায় এমনটি হতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।

স্থানীয় বাসিন্দা আরিফ বলেন, প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ যাতায়াত করে এই সড়ক দিয়ে। ২১ জুন এই সড়কের কার্পেটিং করা হয়। কিন্তু নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করায় তা উঠে যাচ্ছে। কাজের সময়ই এ নিয়ে নানা কথা হয়। তার পরও তড়িঘড়ি করে কাজ শেষ করেন ঠিকাদার। একেবারে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার কারণে এমনটা হয়েছে। এ ছাড়া পিচ দেওয়ার আগে ঠিকমতো সড়ক পরিস্কার না করার কারণে এ দশা হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।

স্থানীয় মুদি দোকানি গফুর বলেন, আমি উপস্থিত একজন এলজিইডি কর্মকর্তাকে সড়কের নির্মাণ কাজ মনঃপূত হচ্ছে না জানালে উত্তরে ওই কর্মকর্তা খেঁকিয়ে বলেন, আমি কি এখানে ঘাস কাটছি।

উপজেলা এলজিইডি অফিস সূত্র জানা যায়, জেকেপি প্রকল্পের আওতায় এক কোটি দুই লাখ টাকা ব্যয়ে যদুবয়রা ইউনিয়নের লালন বাজার থেকে চাপড়া ইউনিয়নের ধর্মপাড়া পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার সড়কের পাকাকরণ শেষ হয়েছে গত শুক্রবার। কুষ্টিয়ার থানাপাড়া এলাকার রশিদুল-হারুন-সুজন ট্রেডার্স এ কাজের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

ঠিকাদার হারুন বলেন, সিডিউল অনুযায়ী কাজ হয়েছে। কোনো অনিয়মের সুযোগ নেই।

কুমারখালী উপজেলা প্রকৌশলী মো. আব্দুর রহিম ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সাফাই গেয়ে বলেন, খুব ভালো ও নামকরা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বাছাই করে কাজ করা হয়েছে। কাজের মান খুব ভালো। তিনি আরও বলেন, আমি শতভাগ সঠিক কাজ করেছি। জনগণ না বুঝে কার্পেটিং তুলে ফেলছে।