লাকসামে রেলওয়ের ভূমি ইজারা এনে দেওয়ার নামে এক রেল কর্মচারীর বিরুদ্ধে লক্ষাধিক টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ওই রেল কর্মচারীর নাম আবুল কালাম। তিনি লাকসাম শহরের চাঁদপুর রেলক্রসিং এলসি-১-এ গেটে গেটম্যান হিসেবে কর্মরত। তার বিরুদ্ধে রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপকসহ ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন উত্তর লাকসাম এলাকার আবদুল জিন্নার ছেলে সুরুজ বাঙ্গাল।

অভিযোগে জানা যায়, ওই গেটম্যান প্রায় সাত মাস আগে শহরের উত্তর লাকসাম এলাকার সুরুজ বাঙ্গালকে রেলওয়ের ভূমি ইজারা এনে দেওয়ার কথা বলে দুই কিস্তিতে ১ লাখ ১৬ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন। দীর্ঘদিনেও রেলের কোনো জায়গা না পাওয়ায় সুরুজ ওই গেটম্যানের কাছে টাকা ফেরত চাইলে তিনি টালবাহানা শুরু করেন।

অভিযোগে আরও জানা যায়, তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে তার কিছু হবে না বলে ওই গেটম্যান নিজেকে রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ঘনিষ্ঠ লোক পরিচয় দিয়ে অভিযোগকারীকে নানাভাবে হুমকি-ধমকি দেন।

লাকসাম পৌর এলাকার জসিম উদ্দিন জানান, গেটম্যান আবুল কালাম একই গেটে দীর্ঘদিন কর্মরত থাকার সুবাদে স্থানীয় অপরাধ সিন্ডিকেট ও রেলের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশে এর আগেও রেলে নিয়োগ, ভূমি ইজারা এনে দেওয়াসহ নানাভাবে মানুষের কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

লাকসাম রেলওয়ে স্টেশনমাস্টার কামরুল ইসলাম বলেন, আবুল কালামের বিরুদ্ধে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে স্থানীয়দের অভিযোগ দেওয়ার কথা শুনেছি। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

লাকসাম রেলওয়ের (ভূমি) কানুনগো কাউসার জানান, দীর্ঘদিন ধরে রেলওয়ের ভূমি ইজারা প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে।

এ ছাড়া পৌর এলাকায় কোনো কৃষি লাইসেন্স দেওয়ার আইন নেই। কেউ এ ধরনের কর্মকাণ্ড করে কোনো ইজারার কাগজ তৈরি করলে তা সঠিক হবে না।

অভিযোগের বিষয়ে গেটম্যান আবুল কালাম বলেন, রাগে-ক্ষোভে সুরুজ বাঙ্গাল আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন। এটা ভুল বোঝাবুঝি।

মন্তব্য করুন