হতদরিদ্র পরিবারের হাল ধরার স্বপ্ন পূরণে ঘুষ ছাড়াই সরকারি নিয়ম অনুযায়ী, মাত্র ১০০ টাকার ব্যাংক ড্রাফট দিয়েই পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি হয়েছে উপমা পালের। এতে আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে ওই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে।

মেধার ভিত্তিতে উপমা পালের পুলিশে চাকরির মধ্য দিয়ে উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ ও হতদরিদ্র পরিবারের হাল ধরার স্বপ্ন পূরণ হতে যাচ্ছে। উপমা পাল পলাশ উপজেলার জিনারদী ইউনিয়নের কুড়াইতলী গ্রামের হতদরিদ্র ধনেরষর পালের মেয়ে। বাবা ধনেরষর পাল নরসিংদীর সমসের জুট মিলে কর্মরত একজন শ্রমিক। ধনেরষর পালের চার মেয়ের মধ্যে উপমা পাল দ্বিতীয়। কোনো ধরনের ঘুষ-বাণিজ্য ছাড়াই মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে পুলিশ কনস্টেবল পদে লোক নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছিলেন নরসিংদীর পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ। এতে উদ্বুদ্ধ হয়েই উপমা পাল ২৪ জুন নরসিংদী পুলিশ লাইনে বাছাই পরীক্ষায় অংশ নেন। কয়েক দিন বিভিন্ন পরীক্ষা সম্পন্ন করে পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি পেয়েছেন। মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে চাকরি পাওয়ায় আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে তাদের পরিবারে।

এছাড়া পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি হওয়ার পর পলাশ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আল-আমিন হাওলাদার শনিবার পুলিশ ভেরিফিকেশনে গিয়ে উপমা পালকে ফুল দিয়ে বরণ ও মিষ্টিমুখ করান। এতে ওই পরিবারের মাঝে আরও আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে। ঘুষ ছাড়া পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি হওয়ার পর নিজের অনুভূতি প্রকাশ করে উপমা পাল বলেন, ছোট থেকেই স্বপ্ন ছিল লেখাপড়া শিখে দরিদ্রতার কষ্ট দূর করতে পরিবারের হাল ধরব। ঘুষ-বাণিজ্য ছাড়াই মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি হবে- নরসিংদী পুলিশ সুপারের এমন ঘোষণার পর আমিও পুলিশ কনস্টেবল পদে প্রতিযোগিতায় অংশ নিই। ভগবানের আশীর্বাদে পুলিশ কনস্টেবল পদে আমার চাকরি হয়েছে।

মন্তব্য করুন