বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র ১৬ শ্রমিক আটক, সড়ক অবরোধ ভণ্ডুল

প্রকাশ: ০৮ জুলাই ২০১৯

পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি

বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে চাকরির দাবিতে ডাকা সড়ক অবরোধ ভণ্ডুল হয়ে গেছে। রোববার দুপুরে পুলিশ আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদসহ ১৬ শ্রমিককে আটক করলে অন্যরা সড়ক ছেড়ে পালিয়ে যান। এ সময় অবরোধকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়।

২৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন বড়পুকুরিয়া কয়লাভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে সম্প্রতি আরও একটি ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার নতুন ইউনিটের নির্মাণ কাজ শেষ হয়। চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইউনিটটির নির্মাণ কাজ শেষ করলে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হয়।

ইউনিট নির্মাণকালে স্থানীয় কয়েকজন সাব-কন্ট্রাক্টর জনবল সরবরাহ করে চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে। সে সময় কন্ট্রাক্টররা বিদ্যুৎকেন্দ্রে চাকরির কথা বলে শ্রমিকদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চলে গেলে বেকার হয়ে পড়েন শ্রমিকরা। এখন তারা বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে স্থায়ী চাকরির জন্য আন্দোলন

শুরু করেছেন।

তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রধান প্রকৌশলী আব্দুল হাকিম সরকার জানান, আন্দোলনরত শ্রমিকরা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের তৃতীয় ইউনিট (২৭৫ মেগাওয়াট) নির্মাণকালে চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অধীন সাব-কন্ট্রাক্টরের (ম্যানপাওয়ার) শ্রমিক ছিলেন। কাজ শেষে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইউনিটটি হস্তান্তর করে চলে যায়। আন্দোলনকারীরা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের শ্রমিক নন। যে কারণে তাদের কোনো দাবি গ্রহণযোগ্য নয়। তাছাড়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র চালাতে শ্রমিকের প্রয়োজন নেই।

এদিকে অবস্থান ধর্মঘটে বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের আন্দোলন পরিচালনা কমিটির সভাপতি হাবিবুর রহমান বলেন, ঠিকাদারদের অধীন কাজ করা শ্রমিকদের মধ্য থেকে ১৫৪ জন স্থানীয় শ্রমিককে তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রে নিয়োগ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বাইরে থেকে লোক নিয়োগের অপচেষ্টা চালাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। বাধ্য হয়ে তারা অবরোধ শুরু করেছেন।

পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি মোখলেছুর রহমান বলেন, আন্দোলনকারীরা শনিবার সকাল-সন্ধ্যা পার্বতীপুর-ফুলবাড়ী সড়ক অবরোধ করে রাখেন। তাদের আন্দোলন থেকে সরে আসার জন্য বলা হলেও তারা রোববার আবারও সড়ক অবরোধ শুরু করেন। এতে ওই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বাধ্য হয়ে সড়ক থেকে ১৬ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।