দামুড়হুদায় প্রশাসনের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যানদের দ্বন্দ্ব

গৃহ নির্মাণের মালপত্র ক্রয় নিয়ে সভা বর্জন

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০১৯

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি

দামুড়হুদায় ইউপি চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা খর্ব করার অভিযোগে উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভা বর্জন করেছেন ইউপি চেয়ারম্যানরা।

ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাসোসিয়েশন দামুড়হুদা উপজেলা শাখার সভাপতি জুড়ানপুর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন বলেছেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জমি আছে ঘর নেই- এমন হতদরিদ্রদের ঘর নির্মাণের মালপত্র ক্রয় সংক্রান্ত বিষয়কে কেন্দ্র করেই সংগঠনের চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার নির্দেশনায় মাসিক সমন্বয় সভা বর্জন করা হয়েছে। ফলে ইউপি চেয়ারম্যানদের অনুপস্থিতিতেই বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে মাসিক সমন্বয় সভা করা হয়।

দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার দীপ্তিময়ী জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, ইউপি চেয়ারম্যানরা সভা বর্জন করেছেন, এটা সঠিক। কিন্তু কেন বর্জন করেছে এটা জানি না। হতদরিদ্রদের জন্য ঘর নির্মাণের মালপত্র ক্রয় সংক্রান্ত বিষয়কে কেন্দ্র করেই ইউপি চেয়ারম্যানরা মাসিক সমন্বয় সভা বর্জন করেছেন কী-না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনী অঙ্গীকার বাস্তবায়নের লক্ষ্যে জমি আছে ঘর নেই এমন হতদরিদ্রদের ঘর নির্মাণের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় কর্তৃক দামুড়হুদা উপজেলায় মোট ৫১টি হতদরিদ্র ব্যক্তিকে ১ কোটি ৩১ লাখ ৫৮ হাজার (ঘরপ্রতি ২ লাখ ৫৮ হাজার) টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে। ইতিমধ্যে ৫১টি হতদরিদ্র ব্যক্তির চূড়ান্ত তালিকাও করা হয়েছে। দুর্যোগ সহনীয় ঘর নির্মাণের লক্ষ্যে মানসম্মত নির্মাণসামগ্রী ক্রয়ের প্রয়োজন। এটাকে মাথায় রেখেই জেলা প্রশাসকের নির্দেশনা মোতাবেক পিআইসিদের (সংশ্নিষ্ট ইউপি সদস্য) সঙ্গে নিয়ে মালপত্র ক্রয় করা হয়েছে। এখানে চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা খর্ব করা হলো কীভাবে?

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাসোসিয়েশন দামুড়হুদা উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক নতিপোতা ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল হক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেছেন, আমরা জনগণের প্রতিনিধি। সরকার গৃহহীনদের জন্য ঘরনির্মাণের বরাদ্দ দিয়েছে। অথচ আমাদের না জানিয়ে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাদ্দকৃত ঘরের নির্মাণসামগ্রী মালপত্র ক্রয় করছেন।

এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক গোপাল চন্দ্র দাস বলেন, দুর্যোগ সহনীয় ঘরনির্মাণ করতে মানসম্মত নির্মাণসামগ্রীর প্রয়োজন। বিধায় মানসম্মত নির্মাণসামগ্রী ক্রয়ের লক্ষ্যেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।