কালীগঞ্জে ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্ব সড়ক অবরোধ

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০১৯

কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্বের কারণে সড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও অবরোধ করেছে বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সরকারি মাহতাব উদ্দিন ডিগ্রি কলেজ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মেইন বাসস্ট্যান্ডে সড়ক অবরোধ করে নেতাকর্মীরা। বিক্ষোভ মিছিলে ছাত্রলীগের শতাধিক নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করে। এ সময় রাস্তার দুই পাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। প্রায় আধা ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ রেখে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও  সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে নেতাকর্মীরা। পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে যান চলাচল স্বাভাবিক করে।

জানা গেছে, গত ৬ জুলাই রাতে ছাত্রলীগ কালীগঞ্জ উপজেলা কমিটিতে নাজমুল হাসান নাজিমকে সভাপতি, মনির হোসেন সুমনকে সাধারণ সম্পাদক ও জাবেদ হোসেন জুয়েলকে সাংগঠনিক সম্পাদক ঘোষণা করে ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রানা হামিদ ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আওয়াল স্বাক্ষরিত জেলা ছাত্রলীগের প্যাডে নতুন কমিটি ঘোষণা দেন। ঘোষণার পর থেকেই তারা দলীয় সিনিয়র নেতাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময়সহ প্রয়াত নেতাদের কবর জিয়ারতের মাধ্যমে দলীয় কর্মকাণ্ড শুরু করেন নতুন কমিটির নেতারা। হঠাৎ ১০ জুলাই রাতে সদ্য ঘোষিত সভাপতি নাজমুল হাসান নাজিমের গঠনতন্ত্রের বয়সসীমা অতিক্রম ও সাংগঠনিক সম্পাদক জাবেদ হোসেন জুয়েলের বিরুদ্ধে বিয়ের অভিযোগ এনে কালীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের স্বপদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

শুধু সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমনকে স্বপদে বহাল রাখা হয়। সে সঙ্গে জেলা ছাত্রলীগের ওই প্যাডে নাজমুল হাসান নাজিমের স্থলে আরেক নাজমুল হোসেনকে সভাপতি ও জাবেদ হোসেন জুয়েলের পরিবর্তে রিয়াজ উদ্দিনকে সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে ছাত্রলীগ কর্মীরা মিছিল ও  অবরোধ করেছে।

বিক্ষুব্ধ কর্মী আসাদুজ্জামান ডিটু বলেন, ১০ জুলাই রাতে ঘোষিত এই কমিটি আমরা মানি না। ৬ জুলাই ঘোষিত কমিটি বহাল রাখার দাবি জানাই আমরা।

সদ্য অব্যাহতি পাওয়া ৬ জুলাই ঘোষিত কমিটির সভাপতি নাজমুল হাসান নাজিম বলেন, ৬ জুলাই কমিটি ঘোষণা করার পর থেকে আমরা শুভেচ্ছা বিনিময় শুরু করি। হঠাৎ কাউকে কিছু না জানিয়ে চার দিনের ব্যবধানে কমিটির শীর্ষ দু'জনকে অব্যাহতি দিয়ে নতুন কমিটি ঘোষণা আমরা মানি না।

এ ব্যাপারে জানতে ঝিনাইদহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রানা হামিদের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।