সুলতান ঘাট নির্মাণ বন্ধ এক বছর

প্রকাশ: ০৪ জুলাই ২০১৯     আপডেট: ০৪ জুলাই ২০১৯

নড়াইল প্রতিনিধি

যার রঙতুলিতে শক্তিশালী ও দৃঢ় মনোবলে ফুটে উঠেছে এ দেশের শ্রমজীবী মানুষ; তিনি বিশ্ববরেণ্য চিত্রশিল্পী এসএম সুলতান। খ্যাতিমান এই শিল্পীর মৃত্যুর পর তার অঙ্কিত ছবি ও ব্যবহার্য জিনিসপত্র, বাসভবন, শিশুদের ছবি আঁকার প্রতিষ্ঠান 'শিশুস্বর্গ, শিল্পীর সমাধিস্থল এবং শিশুদের বিনোদনের জন্য নির্মিত ইঞ্জিনচালিত বড় নৌকাকে ঘিরে ২০০৩ সালে নির্মিত হয় 'এসএম সুলতান কমপ্লেক্স'। নড়াইলে সুলতান কমপ্লেক্স দেখতে আসা পর্যটকদের বসার ব্যবস্থা এবং নৌকা ভেড়ানোর জন্য গত বছরের জুনে নদীর তীরে দৃষ্টিনন্দন 'সুলতান ঘাট' নির্মাণ শুরু হয়। কিন্তু কাজ শুরুর দু'মাস পরই বন্ধ হয়ে যায়।

এ ব্যাপারে নেজারত ডেপুটি কালেক্টর (এনডিসি) আল আমিন বলেন, গত বছর পর্যটন মন্ত্রণালয় থেকে শিল্পী সুলতান ঘাট নির্মাণের জন্য ২০ লাখ টাকা আসে এবং এর জন্য টেন্ডার দিয়ে কাজও শুরু হয়। কিন্তু পরে দেখা যায়, এ টাকায় ঘাট নির্মাণ সম্ভব নয়। তাই নতুন করে গণপূর্ত বিভাগের মাধ্যমে ১ কোটি টাকার একটি প্রকল্প পাঠানো হয়েছে। আশা করছি এটি পাস হলে এখানে একটি নান্দনিক ঘাট নির্মাণ সম্ভব হবে।

গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব বলেন, জেলা প্রশাসকের পরামর্শক্রমে নতুন নকশায় ১ কোটি টাকা ব্যয়ে সুলতান ঘাট নির্মাণের জন্য একটি প্রকল্প সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মুর্তজার সুপারিশে সংশ্নিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এ ঘাটে সুলতান কমপ্লেক্স দেখতে আসা পর্যটকদের বসার ব্যবস্থা এবং বিভিন্ন এলাকা থেকে নৌপথে আসা নৌকাও ভেড়ানোর ব্যবস্থা থাকবে। ফলে তারা বাড়তি আনন্দ উপভোগ করতে পারবে। এ ছাড়া ঘাটের পাশে রাখা শিল্পী সুলতানের নির্মিত নৌকাটি সংরক্ষণের জন্য ছোটখাটো সংস্কার এবং রঙ করা হবে। বরেণ্য এই শিল্পী ১৯২৪ সালের ১০ আগস্ট নড়াইল শহরের মাছিমদিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৯৪ সালের ১০ অক্টোবর যশোরের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।