ভিজিএফ চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

কুলাউড়া ও দশমিনা

প্রকাশ: ১১ আগস্ট ২০১৯     আপডেট: ১১ আগস্ট ২০১৯      

মৌলভীবাজার ও দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে অতিদরিদ্রদের মাঝে ভিজিএফ চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ১ হাজার ১৩০ জনকে চাল বিতরণ করার কথা থাকলেও সাড়ে ৯শ' মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে বলে ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্যরা অভিযোগ করেছেন। অন্যদিকে জনপ্রতি ১৫ কেজি হিসেবে ১ হাজার ১৩০ জনের বিপরীতে ৩৩৯ বস্তা চাল বরাদ্দ হলেও ইউনিয়ন পরিষদে ৩২৯ বস্তা চাল এসেছে বলে সংশ্নিষ্টদের অভিযোগ।

জানা যায়, গতকাল শনিবার কুলাউড়ার কর্মধা ইউনিয়নের ১ হাজার ১৩০ জন অতিদরিদ্র মানুষের মাঝে ঈদুল আজহা উপলক্ষে ভিজিএফের চাল বিতরণের জন্য মেম্বার ও সংরক্ষিত নারী সদস্যরা কার্ড দেন। ওয়ার্ড মেম্বাররা জানান, সাড়ে ৯শ' মানুষকে ৯/১০ কেজি করে চাল বিতরণ করার পর ইউনিয়ন পরিষদ বন্ধ করে চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিক চলে যান। দরিদ্র কর্মজীবী লোকজন ওইদিন বিকেল ৩টার দিকে চাল নিতে এসে খালি হাতে ফিরে যান। মনসুর গ্রামের আজিরুন ও কর্মধা গ্রামের রফিক মিয়া জানান, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে দেওয়া মুড়িকাটা এক বালতি চাল বাড়িতে গিয়ে পরিমাপ করে ৯ কেজি হয়েছে। এদিকে বিকেল ৩টার দিকে চাল নিতে এসে দেড় শতাধিক মানুষ ফিরে গেছেন। ৫ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য রজব আলী জানান, তার ওয়ার্ডের অন্তত ৫০ জন দরিদ্র মানুষ ইউনিয়ন পরিষদ বন্ধ পেয়ে চাল না নিয়ে ফিরে গেছেন। ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার সাইদুল ইসলাম জানান, ১ হাজার ১৩০ জনের বিপরীতে জনপ্রতি ১৫ কেজি হিসেবে ৩৩৯ বস্তা চাল আসার কথা। কিন্তু এসেছে ৩২৯ বস্তা চাল। অন্যদিকে প্রত্যেককে ৫/৬ কেজি করে চাল কম দিয়ে বাকি চাল চেয়ারম্যান আত্মসাৎ করেছেন। ইউনিয়ন পরিষদের দফাদার আব্দুল মতিন জানান, দুটি ট্রাক থেকে যথাক্রমে ১৬০ ও ১৬৯ বস্তা, অর্থাৎ মোট ৩২৯ বস্তা চাল নামানো হয়েছে। আর কোনো চাল সম্পর্কে তার জানা নেই।

কর্মধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এমএ রহমান আতিক জানান, জনপ্রতি ১৫ কেজি করে চাল দেওয়া হয়েছে। চাল কম দেওয়ার অভিযোগ ভিত্তিহীন। বরাদ্দকৃত সব চাল ট্রাকযোগে ইউনিয়ন পরিষদে আনা হয়েছে।

কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লায়েছ আহমদ জানান, এ ধরনের কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে, দশমিনা উপজেলার আলীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাদশা ফয়সালের বিরুদ্ধে ঈদুল আজহা উপলক্ষে গরিব ও অসহায় মানুষের মাঝে ভিজিএফের চাল বিতরণকালে কম দেওয়ার অভিযোগ করেছেন স্থানীয় মানুষ ও ইউপি সদস্যরা।

গতকাল শনিবার আলীপুর ইউনিয়নে চার হাজার অসহায় ও দুস্থ মানুষের মাঝে ঈদুল আজহা উপলক্ষে সরকারের বিশেষ সহায়তার চাল বিতরণ শুরু হয়। সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, মাথাপিছু ১৫ কেজি করে চাল বিতরণের কথা থাকলেও চেয়ারম্যান ৭ থেকে ৮ কেজি করে জনপ্রতি চাল বিতরণ শুরু করেন। এ ঘটনায় চাল নিতে আসা মানুষ ক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দিয়ে মিছিল শুরু করেন। ওই ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আবুল হাসেম গাজী জানান, ভিজিএফের চাল নিতে আসা মানুষ আমাদের কাছে চাল কম দেওয়ার অভিযোগ করলে বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান বাদশা ফয়সালের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলতে চাইলে তিনি কথা বলতে পারবেন না বলে জানান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শুভ্রা দাস জানান, চাল কম দেওয়ার অভিযোগ পেয়ে ওই ইউনিয়নে চাল বিতরণ বন্ধ রাখা হয়েছে।