লংগদুতে স্ত্রী কুলাউড়ায় ভাইকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশ: ১৫ আগস্ট ২০১৯

রাঙামাটি অফিস ও কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) সংবাদদাতা

গত সোমবার রাঙামাটির লংগদু উপজেলায় স্বামীর দায়ের কোপে নিহত হয়েছেন হাছনা বেগম নামে এক গৃহবধূ। এদিকে স্ত্রীকে হত্যার পর স্বামী নাজিম হোসেন নিজের পেটে ছুরিকাঘাত করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। পুলিশ নাজিম হোসেনকে আটক করেছে।

উপজেলার কালাপাকুজ্যা ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামে নাজিম ও হাছনার অভাবের সংসার। সোমবার সকালের দিকে হাছনার সঙ্গে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে নাজিম ধারালো দা দিয়ে স্ত্রীর মাথায় কোপ দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান হাছনা। পরে নাজিম নিজের পেটে ছুরি ঢুকিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। এ সময় তার বড় মেয়ে দেখতে পেয়ে দৌড়ে গিয়ে তার বাবাকে ধরে ফেলে। তাকে লংগদু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নে রবিরবাজার দারুচ্ছুন্নাহ দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র রাজিবুর রহমান ঈদের ছুটিতে বাড়ি গিয়েছিলেন। তবে তার আর ঈদ করা হয়নি। মানসিক রোগী বড় ভাই মামুনুর রহমানের দায়ের কোপে গত রোববার মারা যায় সে। ঘটনার পর পলাতক মামুনুরকে উপজেলার টিলাগাঁও বাজার থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামুন ও রাজিব উপজেলার কর্মধা ইউনিয়নের নোনা গ্রামের ওয়ারিছ আলীর ছেলে। তাদের আরও দুই ভাই বিদেশে থাকেন। রাজিবুর রবিরবাজার দারুচ্ছুন্নাহ দাখিল মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র। কোনো কারণ ছাড়াই বড় ভাই মামুন সকালে ঘুমন্ত অবস্থায় ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে রাজিবকে। এতে ঘটনাস্থলেই রাজিবের মৃত্যু হয়।

কুলাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় চক্রবর্তী জানান, নিহত রাজিবের বাবা ওয়ারিছ আলী কুলাউড়া থানায় হত্যা মামলা করেছেন।