তিন স্থানে হামলায় কৃষকসহ নিহত ৩

প্রকাশ: ১৫ আগস্ট ২০১৯      

সমকাল ডেস্ক

সুনামগঞ্জের ছাতকে ও মেহেরপুরের গাংনীতে সংঘর্ষে কৃষকসহ দু'জন নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে হামলায় স্কুলছাত্র মারা গেছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

মেহেরপুর :গাংনীতে ঈদগাহ উন্নয়নের নির্ধারিত ৫০ টাকা উত্তোলনকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনায় আলেক চাঁদ নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় পুলিশ কামরুল ইসলাম নামের একজনকে গ্রেফতার করেছে। আলেক চাঁদ উপজেলার সাহারবাটি বাঙ্গালপাড়ার দবিরউদ্দীনের ছেলে। সাহারবাটি বাঙ্গালপাড়ায় ঈদের নামাজ ঈদগাহ উন্নয়নের চাঁদা দেওয়া নিয়ে ঈদগাহ মাঠে মকবুল হোসেনের ছেলে রুহুলের সঙ্গে আলেকের কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে পরে দু'পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

ছাতক (সুনামগঞ্জ) :ছাতক উপজেলার উত্তর খুরমা ইউনিয়নের মোহনপুর গ্রামে বুধবার জমি নিয়ে বিরোধে প্রতিপক্ষের হামলায় কৃষক দুদু মিয়া নিহত হন। এ সময় তাকে বাঁচাতে গিয়ে দুই ছেলে খালেদ মিয়া ও জুবেল মিয়া আহত হন। তাদের সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মোহনপুর গ্রামের দুদু মিয়ার সঙ্গে একই গ্রামের আরশ আলী ও জয়নাল মিয়ার জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। সকালে জমিতে দুদু মিয়া ও তার দুই ছেলে হালচাষ করতে গেলে আরশ আলী পক্ষের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে প্রতিপক্ষের লোকজন দুদু মিয়াকে ছুরিকাঘাত করলে ছেলে খালেদ ও জুবেল বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে আহত হন। স্থানীয়রা তাদের সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর সকালে কৃষক দুদু মিয়ার মৃত্যু হয়।

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) :কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে সোমবার প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে আনোয়ার হোসেন নামে এক স্কুলছাত্র নিহত হয়েছে। সে উপজেলার ফিলিপনগর ইউনিয়নের ইসলামপুর ঘোষপাড়া এলাকার মজিবর রহমান বরাতির ছেলে ও ইসলামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। ঈদের দিন সন্ধ্যায় ফিলিপনগর ইউনিয়নের আবেদের ঘাট এলাকায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দেখতে যায় আনোয়ার। অনুষ্ঠানস্থলে ফিলিপনগর দফাদারপাড়া এলাকার মিন্টু প্রামাণিকের ছেলে সাব্বিরের সঙ্গে তার ধাক্কা লাগলে দু'জনের মধ্যে তর্কাতর্কি হয়। সাব্বির বাড়ি ফিরে তার বড় ভাই রাব্বিসহ ৪-৫ বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে আনোয়ার হোসেনের ওপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে সাব্বির আনোয়ারের পেটে ছুরিকাঘাত করে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রাত ২টার দিকে আনোয়ার মারা যায়।