দামুড়হুদায় যুবলীগ কর্মী হত্যায় ৭ জনের নামে মামলা

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট ২০১৯

দামুড়হুদা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি

দামুড়হুদায় যুবলীগ কর্মী নইমুদ্দীন আহমেদ পল্টুকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় দর্শনা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আসলাম আলী তোতা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নানসহ ৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে নিহত পল্টুর ভাই দর্শনা পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মঈন উদ্দীন ওরফে মন্টু বাদী হয়ে দামুড়হুদা মডেল থানায় এই হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার অন্য আসামিরা হলো- দর্শনা পুরাতন বাজারের মৃত জিয়াউল হকের ছেলে দীপু রেজা, দর্শনা মোবারকপাড়ার মৃত আব্দুর রাজ্জাক খানের ছেলে সাইফুল ইসলাম, একই পাড়ার মৃত বাদল খানের ছেলে আলম, সামসুল ইসলামের ছেলে সোহেল এবং ইমরাত আলীর ছেলে আশিক। দামুড়হুদা মডেল থানার ওসি (তদন্ত) কেএম জাহাঙ্গীর কবীর মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ময়নাতদন্ত শেষে লাশ নিহতের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশি অভিযান চলছে।

মাদক ব্যবসা নিয়ে কোন্দলের জের ধরে গত শুক্রবার বিকেলে দামুড়হুদা উপজেলার শিল্পনগরী দর্শনা পুরাতন বাজারের কফি হাউসের অদূরে দর্শনা পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ আসলাম আলী তোতা ও যুবলীগ নেতা আব্দুল মান্নানসহ ১০-১২ জন যুবলীগ কর্মী নইমদ্দীন আহমেদ পল্টুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় মঞ্জুরুল আহমেদ ও জসিম নামে আরও দুই যুবলীগ কর্মী আহত হন। স্থানীয় লোকজন মুমূর্ষু অবস্থায় পল্টু ও মঞ্জুরুলকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক শামীমা ইয়াসমিন পল্টুকে মৃত ঘোষণা এবং মঞ্জুরুলকে ভর্তি করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। পরে মঞ্জুরুলের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।