মনিরামপুরে স্কুলের জমিতে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ

প্রকাশ: ২৫ আগস্ট ২০১৯

মনিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি

মনিরামপুরে কাশিমনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের জমি দখল করে পাকা বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে স্কুলের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ায় শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকাবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে গ্রামীণ অবকাঠামো (কাবিটা) প্রকল্পের আওতায় গৃহহীনদের দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণের জন্য মনিরামপুর উপজেলায় সরকার ২২ জনকে বাড়ি নির্মাণের অর্থ বরাদ্দ দেয়। প্রতিটি বাড়ি নির্মাণে বরাদ্দ দেওয়া হয় দুই লাখ ৫৮ হাজার টাকা। এর মধ্যে কাশিমনগর গ্রামের মৃত নেপাল গাজীর ছেলে আনছার আলী গাজীর নামেও একটি বাড়ি নির্মাণের অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে, নিজের জমির পরিবর্তে আনছার আলী গাজী কাশিমনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ভবন নির্মাণের জন্য নির্ধারিত জমি দখল করে সেখানে বাড়ি নির্মাণ শুরু করেছেন। এরই মধ্যে প্রধান শিক্ষক হাসানুজ্জামানসহ স্কুল কর্তৃপক্ষ কাজে বাধা দিয়েছে। তবে তিনি বাধা উপেক্ষা করে নির্মাণ কাজ অব্যাহত রেখেছেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জিএম আহাদ আলী জানান, ওই জমি নিয়ে আনছার আলী ও তার লোকজনের সঙ্গে স্কুলের বিরোধ চলে আসছে। বিষয়টি আদালত পর্যন্তও গড়িয়েছে। আদালত ওই জমিতে এর আগে ১৪৪ ধারা জারি করেন। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ বায়েজিদ জানান, ওই জমিতে বাড়ি নির্মাণ করতে এরই মধ্যে আনছার আলীকে নিষেধ করা হয়েছে। আনছার আলী জানান, সরকারি অর্থ দিয়ে নয়, নিজের অর্থ দিয়ে পৈতৃক জমিতে তিনি বাড়ি নির্মাণ করছেন।

এদিকে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হাসানুজ্জামান জানান, বিজ্ঞান ভবন নির্মাণের জন্য স্কুলের ওই নির্ধারিত জমি দখল করে সেখানে বাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে। বাড়ি নির্মাণে বাধা দিলেও তা বন্ধ করা হয়নি। ফলে এ ব্যাপারে নতুন করে মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। অন্যদিকে জমি দখল করে বাড়ি নির্মাণ শুরু করায় স্কুলের স্বাভাবিক কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ফলে শিক্ষক- শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকাবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। ইউএনও আহসান উল্লাহ শরিফী জানান, অন্যের জমিতে বাড়ি নির্মাণ করার সুযোগ নেই। যদি ওই জমিতে বাড়ি

নির্মাণ করা হয়, তাহলে ওই ব্যক্তির নামে সরকারি অর্থ বরাদ্দ বাতিল করা হবে।