ফরিদপুরের চরভদ্রাসন ও পটুয়াখালীর গলাচিপায় তিনজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলায় পৃথক স্থান থেকে শনিবার রাতে দুটি লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। উপজেলার সদর ইউনিয়নের কামাড় ডাঙ্গী গ্রামে স্বর্ণা আক্তার (১৪) নামে সপ্তম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ ও গাজিরটেক ইউনিয়নের হাজীগঞ্জ বাজার পদ্মা নদীর উত্তর-পূর্ব ডুবো চর থেকে অজ্ঞাতনামা নারীর গলিত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। খবর পেয়ে চরভদ্রাসন থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে।

অন্যদিকে, স্বর্ণা কামার ডাঙ্গী গ্রামের বাসিন্দা মৃত মোন্নাফ ব্যাপারীর ছোট মেয়ে। সে চরভদ্রাসন রোকন উদ্দিন সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। ঘটনার বর্ণনায় স্বর্ণার মেজ বোন বর্ণা আক্তার বলেন, ওইদিন বিকেল ৫টার দিকে বাড়ির কাছেই পদ্মা নদীতে নৌকাবাইচ দেখতে যায় পরিবারের সবাই। নৌকাবাইচ দেখে সন্ধ্যার দিকে বাড়ি ফিরে স্বর্ণার ঘর ভেতর থেকে আটকানো ও ঘরের ভেতর উচ্চ শব্দে টেলিভিশন চলার শব্দ পান তারা। অনেক ডাকাডাকির পর ঘরের দরজা না খোলায় বেড়ার ফাঁক দিয়ে স্বর্ণাকে ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলতে দেখতে পান।

এদিকে পটুয়াখালীর গলাচিপায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা এমভি বাগেরহাট-২ লঞ্চ থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ের এক তরুণী লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার লঞ্চের দ্বিতীয়তলার ডেক থেকে এ লাশ উদ্ধার করা হয়। তবে কীভাবে এ যুবতীর মৃত্যু হলো এ বিষয়ে এখনও কোনো সঠিক তথ্য জানাতে পারেনি পুলিশ। লাশ পটুয়াখালী হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও লঞ্চযাত্রীদের সূত্রে জানা যায়, শনিবার সন্ধ্যায় সদরঘাট থেকে অজ্ঞাত এক যুবকের সঙ্গে ওই তরুণী লঞ্চে ওঠেন।

মন্তব্য করুন