বছর না ঘুরতেই দেবে গেছে সেতুর সংযোগ সড়ক

ঈশ্বরগঞ্জ

প্রকাশ: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি

বছর না ঘুরতেই দেবে গেছে সেতুর সংযোগ সড়ক

নান্দাইল ও ঈশ্বরগঞ্জ সীমান্তের মধুপুর সেতুর সংযোগ সড়ক এভাবেই দেবে গেছে- সমকাল

সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষে উদ্বোধন হয়েছে এক বছর হয়নি। এর মধ্যেই এর সংযোগ সড়ক দেবে গেছে। সংযোগ সড়ক রক্ষায় মূল সেতুর পাশে সাপোর্ট দেয়ালেও ফাটল দেখা দিয়েছে। কনক্রিটের ঢালাই সরে বেরিয়ে পড়েছে রড। এ অবস্থা ময়মনসিংহের নান্দাইল ও ঈশ্বরগঞ্জ সীমান্তের একটি সেতুর।

ত্রিশাল-বালিপাড়া ও নান্দাইল (কানুরামপুর) সড়কের মধুপুর এলাকায় মধুপুর সেতুর নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করা হয় ২০১৫ সালের ১০ ডিসেম্বর। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের কিশোরগঞ্জ সড়ক বিভাগের অধীনে সেতুটির নির্মাণ কাজ করা হয়। ঈশ্বরগঞ্জ ও নান্দাইলের সীমান্ত বাজার মধুপুর বাজারটি। প্রায় পাঁচ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত সেতুটির কাজ শেষে ২০১৮ সালের ১৫ অক্টোবর উদ্বোধন করা হয়। নান্দাইলের সাংসদ আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন এর উদ্বোধন করেন। সেতুটি উদ্বোধনের এক বছর না পেরোতেই এর সংযোগ সড়ক দেবে গেছে। সেতু-লাগোয়া প্যালাসাইটে দেখা দিয়েছে ফাটল। ঢালাই ও মাটি সরে বেরিয়ে পড়েছে রড। এত দ্রুততম সময়ে সেতুটির সংযোগের বেহাল অবস্থায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা।

নান্দাইলের কানুমারপুর থেকে ত্রিশালের বালিপাড়া পর্যন্ত সড়ক প্রশস্ত করে নতুন করে নির্মাণ কাজ চলছে। নির্মাণ কাজ শেষ হলে এ সড়ক দিয়ে ময়মনসিংহ শহরে প্রবেশ না করে কম সময়ে ত্রিশাল হয়ে ঢাকায় যেতে পারবে এ অঞ্চলের মানুষ। প্রতিমুহূর্তে সড়কটি দিয়ে ভারী যান চলাচল করছে। কিন্তু মধুপুর সেতুটির সংযোগ সড়কটি দেবে যেতে শুরু করায় শঙ্কা বাড়ছে সড়কে চলাচলকারীদের।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের কিশোরগঞ্জ সড়ক বিভাগের অধীন নান্দাইল কার্যালয়ের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. বাবুল হোসেন বলেন, সেতুটির নির্মাণ কাজের সময় প্যালাসাইট ধরা ছিল না; কিন্তু ঠিকাদারকে দিয়ে জোর করে প্যালাসাইট করানো হয়। রাস্তাও ধরা ছিল ১২ ফুটের মতো। করা হয় ৩০ ফুটের ওপরে। সড়কটি দিয়ে অতিমাত্রার লোড নিয়ে যান চলাচল করায় তা দেবে গেছে। তিনি বলেন, কানুরামপুর-বালিপাড়া সড়ক নির্মাণের যে কাজ চলছে তার সঙ্গে সেতুর ওই অংশটিও সংস্কার করা হবে।