পুলিশের অবহেলার অভিযোগ

রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই মুক্তিযোদ্ধার লাশ দাফন

প্রকাশ: ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯      

নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদীতে মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেমকে (৭৫) রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই লাশ দাফন করার ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের অবহেলায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে আবুল হাশেমের পরিবার ও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা অভিযোগ করেছেন। মুক্তিযোদ্ধার প্রতি এ অবেহলার ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে।

মনোহরদীর চরমান্দালিয়া গ্রামের আবুল হাশেম রোববার নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের মাধ্যমে এ খবর পেয়ে মনোহরদী উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মতিউর রহমান বিষয়টি থানা পুলিশকে জানান। সোমবার সকাল ১০টায় মরহুমের জানাজার সময় নির্ধারণ করে পরিবার। পরে থানার পরামর্শে জানাজার সময় এক ঘণ্টা পিছিয়ে ১১টা করা হয়। পুলিশ না আসায় সকাল সাড়ে ১১টা পর্যন্ত অপেক্ষা করে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই একাত্তরের এ বীর সেনানীর লাশ দাফন করা হয়।

মতিউর রহমান জানান, বারবার থানায় ফোন করার পরও পুলিশের এমন আচরণ একজন মুক্তিযোদ্ধাকে অপমানের শামিল।

জানাজায় অংশ নিতে প্রায় হাজারখানেক লোকসমাগম হয়। এরই মধ্যে মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষে দু'জন প্রতিনিধি সেখানে উপস্থিত হন। নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেও পুলিশ না আসায় ফের ফোন করা হলে তাদের পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা কাছাকাছি চলে এসেছেন। ততক্ষণে জানাজায় অংশ নিতে আসা লোকজন রোদে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে বিরক্ত হয়ে যাচ্ছিলেন। এরপর আরও আধঘণ্টা অপেক্ষা করে সকাল সাড়ে ১১টায় জানাজা শেষে আবুল হাসেমের লাশ দাফন করা হয়। পরে ১১টা ৫০ মিনিটের দিকে সেখানে উপস্থিত হন মনোহরদী থানা পুলিশের সদস্যরা।

ইউনিয়ন কমান্ডার শহিদুল্লাহ জানান, 'শুধু পুলিশের অবহেলার কারণেই একজন মুক্তিযোদ্ধা তার প্রাপ্য রাষ্ট্রীয় সম্মান পেলেন না। এটা খুবই দুঃখজনক। আমরা খুবই মর্মাহত ও লজ্জিত।' ওসি মনিরুজ্জামান ভূঁইয়ার মোবাইলে কল দেওয়া হলে তিনি রিসিভ করেননি।

মনোহরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাফিয়া আক্তার শিমু বলেন, বিজয়ের মাসে একজন মুক্তিযোদ্ধাকে শেষ বেলায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদা দিতে না পারা খুবই দুঃখজনক।