ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় স্ত্রীর মামলা

প্রকাশ: ১৮ অক্টোবর ২০২০

বকশীগঞ্জ (জামালপুর) সংবাদদাতা

বকশীগঞ্জ উপজেলার নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নজরুল ইসলাম সাত্তার এবং তার প্রথম স্ত্রীর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা হয়েছে। মামলার বাদী ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তারের দ্বিতীয় স্ত্রী বকশীগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহানারা বেগম। ১৬ অক্টোবর রাতে বকশীগঞ্জ থানায় ওই মামলা করা হয়।

দু'জনেই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। রাজনৈতিক সূত্র ধরে তাদের পরিচয়। একপর্যায়ে উপজেলা মহিলা আ'লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহানারা বেগমকে বিয়ের প্রস্তাব দেন ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তার। জাহানারা বেগম তাকে তার প্রথম স্ত্রীর কথা বললে ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, আমি তাকে তালাক দিয়েছি। ২০১৯ সালের ১১ মার্চ নজরুল ইসলাম সাত্তারের সঙ্গে কাবিনমূলে প্রতিবেশী ধানুয়া কামালপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্বা আবুল হোসেনের মেয়ে জাহানারা বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তার ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করেন। টাকা দিতে আপত্তি করায় নজরুল ইসলাম সাত্তার জাহানারাকে মারধর করেন এবং একপর্যায়ে তালাক দেন। পরে জাহানারা বেগম জামালপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে সাত্তার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলার উভয় পক্ষ আপস মীমাংসা হয়ে চলতি বছরের ১৮ মার্চ কাবিনমূলে আবারও জাহানারকে বিয়ে করেন নজরুল ইসলাম সাত্তার।

দ্বিতীয় দফায় বিয়ের পর ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তার ফের যৌতুক দাবি করেন। যৌতুক না দেওয়ায় জাহানারাকে ১৩ অক্টোবর মারধর করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন। চিকিৎসা শেষে ১৬ অক্টোবর জাহানারা বেগম স্বামী ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তার ও তার প্রথম স্ত্রীর বিরুদ্ধে বকশীগঞ্জ থানায় মামলা করেন। মামলার পর ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম সাত্তার পলাতক।

এ ব্যাপারে বকশীগঞ্জ থানার ওসি শফিকুল ইসলাম সম্রাট মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।