সন্ধ্যা রানীর ঘরে ৯ দিনেও জ্বলেনি সন্ধ্যাবাতি

প্রকাশ: ১৮ জানুয়ারি ২০২১

ঘাটাইল (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

সন্ধ্যা রানীর ঘরে ৯ দিনেও জ্বলেনি সন্ধ্যাবাতি

শিশুসন্তান কোলে সন্ধ্যা রানী

ঘাটাইলে আদিবাসী নারীকে নির্যাতনের ঘটনার ৯ দিন পার হলেও ভয়ে-আতঙ্কে এখনও তার বাড়ি ফেরা হয়নি। সেই দিনের নির্যাতনের কথা মনে হলে এখনও আঁতকে ওঠেন সন্ধ্যা রানী। অথচ তার করা মামলার আসামিরা জামিনে মুক্তি পেয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন এলাকায়। ভুক্তভোগী পরিবারটিকে বাড়িছাড়া করার হুমকি-ধমকি দিচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, চুরির অপবাদে সন্ধ্যা রানীর পরিবারের চার সদস্য নির্যাতনের শিকার হন। চোর সন্দেহে প্রথমে মারধর করা হয় সন্ধ্যা রানীর আট বছরের শিশুপুত্র পলাশকে। এর তিন দিন পর তার স্বামী নারায়ণ বর্মণকে। এ নিয়ে খসরু ভূঁইয়ার নেতৃত্বে গ্রাম্য সালিশ বসে। বিচারেও মারধর করা হয় সন্ধ্যা রানী ও তার স্বামীকে। এতকিছু ঘটে গেলেও কিছুই জানতেন না বলে জানান স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যান। বিচার মন মতো হয়নি, তাই এর তিন দিন পর বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় সন্ধ্যা রানীকে। তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন চালায়। গাছে বাঁধার সময় তার কোলে ছিল ছয় মাসের শিশুসন্তান।

সন্ধ্যা রানী বলেন, ৯ জানুয়ারির ঘটনার পর দিন থানায় মামলা করি। তিন দিন পার হলেও পুলিশ আসামি ধরতে ব্যর্থ হয়। পরে ১৪ জানুয়ারি আসামিরা আদালত থেকে জামিন নিয়ে আসেন। এসেই আমাদের গ্রামছাড়া করবে বলে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। তিনি জানান, তেবাদিয়া গ্রামে বোন জামাইয়ের বাড়ি আছি, ভয়ে নিজ ঘরে ফিরতে পারিনি।