বরগুনার পাথরঘাটায় স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মাহবুবুর রহমান খানকে মারধর করা হয়েছে। রোববার বিকেলে থানা গেটের সামনে এ ঘটনা ঘটে। নৌকা মার্কার প্রার্থী আনোয়ার হোসেন আকনের সমর্থক ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মারধর করে বলে অভিযোগ করেন মাহবুবুর রহমান খান।

জানা গেছে, রোববার বিকেল ৩টায় উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে জেলা পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর মল্লিক ও জেলা প্রসাশক মো. হাবিবুর রহমান প্রার্থীদের নিয়ে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ে সভা করেন। সভা শেষে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মাহবুব খান বাসায় ফিরছিলেন। এ সময় নৌকা মার্কার প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র আনোয়ার হোসেন আকনের সমর্থকরা ধাওয়া করে থানা গেটের সামনে তাকে মারধর করেন। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে বাসায় পৌঁছে দেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাত পৌনে ৯টার দিকে ছাত্রলীগ কর্মীরা মাহবুব খানের বাসায় হামলা করলে উভয়পক্ষের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপের

ঘটনা ঘটে। এ সময় ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মী আহত হন।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী আনোয়ার হোসেন আকন জানান, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা মাহবুবুর রহমান খানের বাসার সামনে দিয়ে মিটিংয়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় তাদের লক্ষ্য করে বাসার ছাদের ওপর দিয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়। এতে ছাত্রলীগের পাঁচ কর্মী আহত হয়েছেন। এ ব্যাপারে আমি থানায় মামলা করেছি।

স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুর রহমান খান অভিযোগ করেন, আইনশৃঙ্খলা সভা শেষে বাসায় যাওয়ার পথে পাথরঘাটা গোলচত্বর থেকে তাকে ধাওয়া করা হয়। এ সময় দৌড়ে থানায় আশ্রয় নিতে গেলে গেটের সামনে তাকে হাতুড়িপেটা করে ছাত্রলীগ কর্মীরা। এতে তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রক্তাক্ত জখম হয়। দ্বিতীয়বার রাত সাড়ে ৮টার দিকে তার বাসায় ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে তারা। এ সময় দোতলার জানালার গ্লাস ভেঙে ওই গ্লাস এবং ইট পড়ে তারা আহত হয়েছে।

এ ঘটনায় নৌকা মার্কার নির্বাচনের প্রধান সমন্বয়কারী ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রিপন উপজেলা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন। তিনি ছাত্রলীগের ওপর হামলার নিন্দা জানিয়ে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা বলেন, আমি ঘটনাস্থল

পরিদর্শন করেছি। এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

পাথরঘাটা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইদ আহম্মেদ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ব্যাপারে

নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আনোয়ার হোসেন আকন

মামলা করেছেন।

এদিকে, জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বিএনপির বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র (নারিকেল গাছ) মেয়র প্রার্থী ফজলুল হক খানকে মারধর করা হয়েছে। সোমবার সকাল ১১টার দিকে পৌর কামরাবাদ পশ্চিমপাড়া ঝিনাই ফিলিংস্টেনের সামনে এ ঘটনা ঘটে। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা এ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। পরে তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সরিষাবাড়ী পৌরসভার কামরাবাদ পশ্চিমপাড়া এলাকায় আবদুল কদ্দুছ নামে এক ব্যক্তির জানাজায় অংশ নিতে গতকাল সকালে সেখানে যান স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ফজলুল হক খান। এ সময় মোটরসাইকেল পার্ক করার সময় আওয়ামী লীগের ২০-২৫ কর্মী অতর্কিত ফজলুল হককে মারধর করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। এ সময়

জানাজায় আসা লোকজন হামলাকারীদের হাত থেকে তাকে উদ্ধার করে।

স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ফজলুল হক খান অভিযোগ করেন, জানাজায় অংশগ্রহণকালে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মনির উদ্দিনের সমর্থকরা তার ওপর হামলা চালিয়ে লাঠিসোটা দিয়ে পিটিয়ে আহত করে।

আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মনির উদ্দিন বলেন, কিছু বাজে ছেলে-পেলে হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। বিষয়টি আমি দেখছি।

সরিষাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু মো. ফজলুল করিম বলেন, খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মন্তব্য করুন