হত্যা মামলায় ১০ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশ: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

খুলনা ব্যুরো ও কিশোরগঞ্জ অফিস

খুলনার ডুমুরিয়ায় ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালক আসমাউল মোড়ল জীবন (২৮) হত্যা মামলায় চার আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার খুলনা বিভাগীয় স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক জিয়া হায়দার এ রায় ঘোষণা করেন।

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে বিয়ের ১৫ দিন পর নববধূ রুবা আক্তারকে হত্যার দায়ে দুই চাচাশ্বশুরসহ ছয় আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম এ রায় দেন।

ডুমুরিয়ায় সাজাপ্রাপ্ত আসামিরা হলো- শুভংকর রায়, সুধাময় বালা ওরফে সুধাবৃন্দ বালা, অমিত বিশ্বাস ও দীপংকর রায়। তাদের বাড়ি ডুমুরিয়ার বান্দা উলোরডাঙ্গা এলাকায়। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় অন্য আট আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ জানায়, আসামিরা মোটরসাইকেল নিয়ে ডুমুরিয়ার রংপুরে যাওয়ার কথা বলে ২০০৭ সালের ১৯ অক্টোবর রাতে আসমাউলকে মোবাইল ফোনে ডেকে নেয়। এর পর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। পরদিন ২০ অক্টোবর ডুমুরিয়ার খড়িয়া এলাকা থেকে বুকে ছুরিবিদ্ধ অবস্থায় আসমাউলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ভাই হাবিবুর রহমান বাদী হয়ে ১২ জনকে আসামি করে ডুমুরিয়া থানায় মামলা করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডুমুরিয়া থানার এসআই লস্কর জায়াদুল হক ২০০৮ সালের ৬ আগস্ট ১২ জনকে আসামি করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

করিমগঞ্জে দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন উপজেলার ভাটিয়া মোড়লপাড়া গ্রামের মো. তাহেরের মেয়ে লুৎফা, মৃত মীর হোসেনের ছেলে মো. সোরাব, তার স্ত্রী জোসনা ও ছেলে মো. শরীফ, মৃত হালু মিয়ার ছেলে মুসলিম, তার স্ত্রী নূর নাহার বেগম।