লালমাই উদ্ভিদ উদ্যানে বাড়ছে পর্যটকের ভিড়

প্রকাশ: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

উঁচু-নিচু টিলা। চারপাশে নাম না জানা বিলুপ্তপ্রায় হাজারো প্রজাতির উদ্ভিদ। গাছের সঙ্গে লেখা ছোট ছোট কাগজের পরিচয় না দেখলে চেনার উপায় নেই। বিভিন্ন ফুলের সৌন্দর্যের পাশাপাশি রয়েছে নানা প্রজাতির উদ্ভিদ। দিনভর মুখর থাকে পাখির কিচিরমিচির কলতানে। প্রজাপতি ঘুরে বেড়াচ্ছে ফুলে ফুলে। সব মিলিয়ে প্রাকৃতিক সব রূপ যেন একসঙ্গে জড়ো হয়েছে এখানে। এমনই নান্দনিক রূপের দেখা মিলবে কুমিল্লার লালমাই উদ্ভিদ উদ্যানে।

বসন্তের এই সময়ে উদ্ভিদ উদ্যানের মনকাড়া সৌন্দর্য ভ্রমণপিপাসুদের ক্লান্তি ভুলিয়ে দেবে মুহূর্তেই। কুমিল্লা শহরের পর্যটন এলাকা কোটবাড়ীর সালমানপুরে ১৭ একর জায়গায় বিরল উদ্ভিদের এই আবাসস্থলটির অবস্থান। উদ্যানটি বর্তমানে বিনোদনের পাশাপাশি গবেষণা ও জ্ঞান অর্জনের জায়গা হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে। বিভিন্ন জায়গা থেকে উদ্ভিদ উদ্যান দেখতে এসেছেন পর্যটকরা। কেউ ঘুরে ঘুরে গাছের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছেন। আবার কেউ সন্তানদের পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন নতুন নতুন গাছের সঙ্গে। লালমাই পাহাড় এলাকায় উদ্ভিদ উদ্যান স্থাপন প্রকল্পের আওতায় প্রায় ১৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালে ১৭ একর জায়গায় লালমাই উদ্ভিদ উদ্যান নির্মাণকাজ শুরু হয়। ২০২০ সাল থেকে উদ্যানটি দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। বর্তমানে এই উদ্যানে পাঁচ হাজারের বেশি প্রজাতির উদ্ভিদ রয়েছে।

কুমিল্লা সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা কাজী মো. নুরুল করিম বলেন, ১৭ একর জায়গায় উদ্যানটি তৈরি করা হয়েছে। তবে ভবিষ্যতে উদ্যানের পরিধি আরও বিস্তৃত করতে মাস্টারপ্ল্যান করা হয়েছে। জমি অধিগ্রহণ করে উদ্যানের পরিধি বাড়ানো হবে।