কলাপাড়ায় সাবেক এমপিপুত্র উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আবদুল্লাহ আল ইসলাম লিটনের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। সমবায় অধিদপ্তরের অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী লাল মোহাম্মদ সন্যামতের ৬৬ শতক জমি দখল করে মাছের ঘের তৈরি করেছেন তিনি।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় কলাপাড়া প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ভুক্তভোগী জমির মালিকের ছেলে আ. হালিম সন্যামত এ অভিযোগ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জমির মালিক লাল মোহাম্মদ সন্যামত ও তার স্ত্রী সালমা বেগম।

লিখিত বক্তব্যে আ. হালিম সন্যামত জানান, উপজেলার লালুয়া মৌজায় ফুল গাজী ও আর্শ্বেদ গাজীর কাজ থেকে তার বাবা (লাল মোহাম্মদ সন্যামত) ১৯৮৯ সালে ১ দশমিক ৬৫ একর জমি ক্রয় করেন। ৩৩ বছর ধরে তা ভোগদখল করে আসছেন। নয় বছর পর ওই জমি থেকে ১৯৯৮ সালে ওভার সেল দলিলের মাধ্যমে শূন্য দশমিক ৬৬ একর জমি ক্রয় করে বিএস পর্চা করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি লিটন।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি লালুয়া ইউনিয়নের চারিপাড়া গ্রামে আবদুল্লাহ আল ইসলাম লিটন ক্যাডার বাহিনী নিয়ে ওই জমিতে ভ্যাকু মেশিন দিয়ে মাটি কেটে মাছের ঘের তৈরি করেছে।

এ সময় লাল মোহাম্মদ সন্যামত বাধা দিলে হকিস্টিক, রড দিয়ে পিটিয়ে স্ত্রী-সন্তানসহ লাল মোহাম্মদ সন্যামতকে আহত করে। এ সময় জমি ভোগদখল করতে হলে চাঁদা দাবি করে তারা।

এ ঘটনায় লাল মোহাম্মদ বাদী হয়ে ৮ ফেব্রুয়ারি আদালতে মামলা করেন। এরপর থেকে মামলা তুলে নিতে হুমকি দিয়ে আসছে। বর্তমানে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

এ ব্যাপারে আবদুল্লাহ আল ইসলাম লিটনের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার বড় ভাই নেছার উদ্দিন আহম্মেদ খোকন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমরা কাউকে পিটাইনি। কারোর জমি দখল করে মাটি কাটিনি। আমরা পৈতৃক সম্পত্তিতে মাছের ঘের তৈরি করছি।

মন্তব্য করুন